কিং শার্কের বাংলা অরিজিন king shark bangla origin

২০২১ এ ডিসির অন্যতম হাইপড মুভি সুইসাইড স্কোয়াড ২ এর অন্যতম মূখ্য চরিত্র হল কিং শার্ক নামক এক হিউম্যানয়েড শার্ক বা মানবাকৃতির হাঙর। এর স্রষ্টা Karl Kesel. দেখতে এবং আচার-আচরণ অনেকটাই গুলুমুলু কিউট হিসেবে উপস্থাপন করা হলেও ভয়ংকর সুন্দর বলে একটা কথা আছে না?
 সেটা খাপেখাপে মিলে যায় এর সাথে। সুইসাইড স্কোয়াড মুভির কিং শার্কের অনুপ্রেরণা নেয়া হয়েছে ২০২০ এ মুক্তিপ্রাপ্ত জনপ্রিয় এনিমেটেড সিরিজ হার্লি কুইন এর কিং শার্ক থেকে। যদিও কমিক সহ অন্যান্য বেশিরভাগ মিডিয়াতে এক নৃশংস দানব হিসেবেই উপস্থাপন করা হয়েছে তবুও এই ক্যারেক্টার ডিজাইনও আমার কাছে নেহাত খারাপ লাগে নি। 
তবে আজ পর্যন্ত লাইভ অ্যাকশনে কিং শার্কের সবচেয়ে ভয়াবহ পোর্ট্রেয়াল ছিল CW এর ফ্ল্যাশ সিরিজে। এছাড়াও ভিডিও গেইম, অ্যানিমেশন ইত্যাদি মিডিয়াগুলোতে বেশ ভালো এপিয়ারেন্স আছে এই চরিত্রের।
আজকে সেই কিং শার্কের অরিজিন নিয়েই আলোচনা করতে এসেছি।
#Origin
#King_Shark
🚫REAL NAME: Nanaue 
🚫MAIN ALIAS:King Shark
🚫RELATIVES: Chondrakha (father)
Kaikea (mother)
🚫AFFILIATION: Secret Six · formerly Secret Society of Super Villains, Suicide Squad
🚫BASE OF OPERATIONS: Honolulu, Hawaii
                    STATUS
🚫ALIGNMENT: Bad
🚫IDENTITY: Secret Identity
🚫RACE: Shark
🚫CITIZENSHIP: American
🚫MARITAL STATUS: Single
🚫OCCUPATION:Professional Criminal
            CHARACTERISTICS
🚫GENDER: Male
🚫HEIGHT: 7' 2"
🚫WEIGHT: 380 lbs (172 kg)
🚫EYES: Black
🚫HAIR: No Hair
                    ORIGIN
🚫UNIVERSE: New Earth
🚫CREATORS: Karl Kesel
🚫FIRST APPEARANCE: Superboy Vol 4 #0
(October, 1994)
🦈১৯৯৪ সালের সুপারবয় কমিকের ইস্যু ০ এর শেষে প্রথমবার একটা ক্যামিওর মাধ্যমে নিজের অস্তিত্বের জানান দেয় কিং শার্ক। তারপর ইস্যু ৯ এর প্রথম এবং শেষভাগে শার্কের অরিজিন প্রদর্শন করা হয়। 
বলা হয়ে থাকে Nanaue ওরফে কিং শার্ক হাওয়াইয়ের মিথোলজির শার্ক গড বা হাঙর দেব Chondrakhaর সন্তান।
🦈সুপারবয় ১৯৯৪ ইস্যুর শুরুতে দেখা যায় এক হাওয়াইয়ান অধিবাসী যুবক দম্পতি যারা সমুদ্র স্নানে যাচ্ছে তাদের পেছন থেকে একটা আলখাল্লা পরিহিত রহস্যময় ব্যক্তি সাবধান করে যে সাগরে এখন একটা হাঙর আছে তারা যেন পানিতে না নামে। 
যুবক সেই লোককে নানাওয়ে সম্বোধন করে বললো যে পানিতে কোন হাঙর দেখা যাচ্ছে না তাই তারা সাবধানবাণী উপেক্ষা করে পানিতে নেমে পড়ে আর কিছু সময় পরেই একটা বিশাল চোয়ালকে পানির ওপরে আলোড়ন তুলে তেড়ে আসতে দেখা যায় এবং এই প্যানেলেই ন্যারেশনে উল্লেখ করা হয় “হাওয়াইয়ের কিংবদন্তীতে বহু বছর আগে নানাওয়ে waipio উপত্যকায় বাস করতো। 
কেউ জানতো না নানাওয়ের বাবা ছিল হাঙরদের রাজা, বা যেই খুনির সম্পর্কে ও সবাইকে সতর্ক করতো সেটা ছিল ও নিজেই। কেউ জানতো না কারণ যারাই ওর অবাধ্য হত সবাইকেই ও খেয়ে ফেলতো।”
এর পরবর্তী প্যানেলেই দেখা যায় একজন মহিলা সাগরে হাঙরদের মাঝে সাতার কাটছে যার সামনে উদয় হয় নানাওয়ে বা কিং শার্ক। মহিলা তখন বলে "Good to see you my son".
🦈ইস্যুর শেষদিকে দেখা যায় নানাওয়ের জন্মের কাহিনী ওর মায়ের স্বপ্ন হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে এবং দেখা যায় হাওয়াইয়ের কিংবদন্তী হাঙর দেবতা Kaikea নামক সেই মহিলার স্বপ্নে দেখা দিয়ে বলে যে কাইকিয়া হাঙর দেবতার একটা সন্তান গর্ভে ধারণ করবে এবং তারা একে অপরকে রক্ষা করবে (বেশ কিছুদিন আগে একটা খবর পড়ছিলাম যে স্বপ্নে প্রবাসী স্বামীরে ভালোবাইসা স্ত্রী গর্ভবতী হইয়া গেছে। মনে হয় এমনই কোন দেশী গল্প থিকা ইন্সপায়ারেশন নিছে রাইটার)।
এরপর থেকে কাইকিয়াকে যে যত যাই বলুক সে সেই স্বপ্নকেই বাস্তবতা মেনে নিয়ে অপেক্ষায় আছে যে হাঙর দেবতা Chondrakha সময়মতো তার প্রেয়সী এবং সন্তানের কাছে একদিন ঠিকই।
🦈এই দুটো অংশের মধ্যবর্তী প্যানেগুলোর শুরুতে দেখা যায় সুপারবয় নিজের পরিচিত এক পরিবারের সাথে এসেছে হাওয়াইয়ের এক সৈকতে ছুটি কাটাতে এবং সেই পরিবারে দুই শিশু ছেলেমেয়ে পানিতে নামে একসময় এবং দুর্ভাগ্যবশত সেই সময় কিং শার্ক হামলার জন্য সেই স্থানই বেঁছে নেয়। 
একটা সময় কিং শার্ক ঐ দুই বাচ্চার ওপর হামলা করলে তারা হাঙর বলে চিৎকার করে এবং সুপারবয় ওদের বাঁচাতে সক্ষম হয় কিন্তু মেয়েটা কিছুটা আহত হয় আক্রমণকারীর দ্বারা। 
পানির আলোড়নে সুপারবয় আক্রমণকারীকে ঠিকভাবে দেখতে পায় নি তাই স্বাভাবিক সবাই এটাকে সাধারণ হাঙরের হামলা বলেই ধরে নেয় এমন সময় সেখানে এক লোকের আবির্ভাব হয় যে নিজেকে স্পেশাল এজেন্ট Sam Makoa হিসেবে পরিচয় দেয় এবং দাবী করে এটা কোন হাঙরের কাজ নয়। 
সে আহত মেয়েটাকে দেখতে অনুমতি নেয় এবং পরীক্ষা করে জানায় ক্ষতটা কোন চোয়ালের দ্বারা নয় বরং থাবার দ্বারা হয়েছে। মাকোয়ার সাথে সুপারবয়ের পূর্বপরিচয় থাকায় সে তাকে এখানে আসার উদ্দেশ্য জিজ্ঞেস করে তখন মাকোয়া তাকে সব কিছু খুলে বলে।
“আমি ফেডেরাল এজেন্ট হওয়ার আগে পুলিশে ছিলাম এবং বেশ কিছু মিসিং কেইস নিয়ে কাজ করছিলাম। একটা সময় এই সিদ্ধান্তে উপনীত হলাম যে বেশ কিছু মিসিং পার্সনের কেইস একসূত্রে গাঁথা। ধরে নিলাম এগুলো কোন সিরিয়াল কিলারের কাজ। 
কিন্তু আমার ধারণা অর্ধেক সত্য ছিল। একজন এসবের পেছনে ছিল তবে সে তার ভিক্টিমদের শুধু খুনই করতো না বরং খেয়ে ফেলতো, আমাকেও প্রায় খেয়েই ফেলেছিলো। একরকমের মানব-হাঙররুপী একটা প্রাণী। ওর পরিবার ওর কুকর্ম আড়াল করেছে, বহু বছর ধরে ওকে খাইয়েছে।” 
সুপারবয় আশ্চর্যের সুরে বলে “ওরা কিভাবে করতে পারলো এসব?” উত্তরে মাকোয়া জানায় “হাওয়াইয়ের মিথোলজিতে হাঙরদের সাধারণত লাভজনক রক্ষাকর্তা হিসেবেই মানা হয়। ওরা মনে করো ওদের ছেলে পরবর্তী হাঙর রাজ। ওরা এটা কিছুতেই মানতে নারাজ যে ওদের সন্তান আদতে একটা জঘন্য মিউটেশনের কুফল। 
আমি আজ এখানে এসেছি কারণ কাল রাতেই Kulani কারাগার থেকে ও পালিয়েছে। আর অন্য কেই এই খুনিকে এত ভালো চেনে না যতটা আমি চিনি। আমি জানি ওকে কোথায় পাওয়া যাবে আর আজ রাতেই আমি সেখানে হানা দেবো”। 
সবকিছু শুনে সুপারবয়ও আগ্রহী হয় এই অপারেশনে যোগ দিতে এবং পরবর্তী দৃশ্যপট হাওয়াইয়ের এক কুঁড়েঘরের আঙিনায় রাতের অন্ধকারে। সেখানে সুপারবয় এবং মাকোয়ার ফোর্স ঘরে প্রবেশের পূর্বে সুপারবয় চারদিকে এক্সরে স্ক্যান করে ঘরে এক বৃদ্ধা ছাড়া কাউকেই পায় না। 
ঘরে ঢোকার পরে তারা নানাওয়ের মা কে পায় যে জানায় যে “ও যাবার আগে খুব ক্ষুধার্ত ছিল তাই আমি ওকে খাইয়েছি” এবং সবাই দেখে যে নানাওয়ের মা কাইকিয়ার একটা হাতের অর্ধেক নেই এবং সেখানে বাধা ব্যান্ডেজ চুইয়ে এখনও রক্তপাত হচ্ছে। 
এই দৃশ্য সুপারবয় সহ্য করতে না পেরে বমি করে দেয় কিন্তু শীঘ্রই নিজেকে সামলে আবার এলাকাটা এক্সরে স্ক্যান করে বাড়ির উঠোনের নিচে একটা সুরঙ্গ খুঁজে পায় যেটা সরাসরি সমুদ্রের সাথে মিশেছে এবং সুরঙ্গে রক্তের নমুনা পেয়ে তৎক্ষনাৎ সুপারবয় সুরঙ্গের মুখ ধরে সমুদ্রে ঝাপ দেয়। 
একটু পরেই মৃত্যুদুতের মত কিং শার্কের মুখোমুখি হয় সে যেই লড়াইয়ে সুপারবয় সুবিধে করতে পারছিলো না এমনকি কিং শার্কের চোয়ালের আঘাতও পেয়েছে গভীরভাবে এমনকি হয়তোবা মারাই পড়তো ও যদি না ওর হিট ভিশন ট্রিগার হয়ে কিং শার্ককে নক আউট করতো। 
এরপর কিং শার্ককে যথাযথ নিরাপত্তার সাথে স্টার ল্যাবে স্থানান্তর করা হয় যতক্ষণ না কুলানি কারাগারে ওর জন্য তৈরি করা সেল সম্পূর্ণভাবে ঠিকঠাক করা হচ্ছে।
🦈এরপর ইস্যু ১৩ তে দেখা যায় মাকোয়া সুপারবয়কে একটা বিপদজনক মিশনের জন্য আমান্ডা ওয়ালারের সুইসাইড স্কোয়াডে রিক্রুট করেছে যেখানে ব্রিফিংয়ের সময় আমান্ডা ওয়ালার প্রকাশ করে ওদের সাথে কিং শার্কও যাবে। 
এতে মাকোয়া এবং সুপারবয় দারুণ অসম্মতি প্রকাশ করলেও আমান্ডা জানায় মাকোয়া এই মিশনের লিডার আর ওর থেকে বেশি দুরে গেলে বা ওর কিছু হলে কিং শার্কের কোমড়ের এক্সপ্লোসিভ বেল্টের বিস্ফোরণ ওকে দু টুকরো করে ফেলবে। 
মিশনের শেষদিকে Nockout নামের এক স্কোয়াড সদস্য কিং শার্কের বেল্টে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে দেয় কিন্তু পরবর্তীতে জানা যায় যে ঐ বিস্ফোরণেও কিং শার্কের তেমন কিছু হয় নি।
⚡Powers & abilities:
যেহেতু সে মানবাকৃতির হাঙর তা স্বাভাবিকভাবেই সে পানির নিচে নিশ্বাস নিতে সক্ষম এবং ভূমিতেও ওর সমস্যা হয় না যার ফলে ও আরো ভয়াবহ রকমের বিপদজনক হয়ে ওঠে। এছাড়া কথিত আছে যে সে হাওয়াইয়ান মিথোলজির হাঙর দেব Chondrakhaর সন্তান।
🌊Superhuman Strength / Berserker Strength:
নানাওয়ে দারুণ রকমের শারীরিক শক্তির অধিকারী। বিশাল বিশাল ওজন বিনাকষ্টে তুলে নেয়া সহ কংক্রিট, ধাতব বস্তু বা দেয়াল সহজেই গুড়িয়ে দেয়ার মত শক্তিশালী সে। 
এছাড়া সুপারবয়, আকোয়াম্যান ইত্যাদির মত বেশকিছু শক্তিশালী মেটাহিউম্যান চরিত্রদের সাথে বেশ কয়েকবার হাতাহাতি হয়েছে ওর।
হাঙরের মতই রক্তের ঘ্রাণ পেলে সে একদম পাগল হয়ে যায় তখন ওকে থামানো আরো কঠিন হয়ে পড়ে।
🌊Superhuman Durability / Healing Factor:
কিং শার্কের শরীর অনেক দুর্ভেদ্য এবং ড্যুরেবল। ওর চামড়া বুলেটপ্রুফ, সমুদ্রের তলদেশের উচ্চ চাপ, মারাত্মক ঠান্ডা আবহাওয়ায় সহজেই মানিয়ে নিতে পারে তার সাথে বেশ বড়সড় মেটাহিউম্যান চরিত্রদের দেয়া আঘাতও সহ্য করে নিতে পারে।
 উড়ন্ত প্লেন থেকে কংক্রিটের মেঝেতে ফেলে দেয়া সত্ত্বেও তেমন গুরুতর ক্ষতি হয় নি। মোটামুটি বিস্ফোরণও আরামসে সহ্য করে নিতে পারে।
 
এছাড়া বড়সড় আঘাত পেলে বেশ দ্রুতই ক্ষত সারিয়ে নিতে সক্ষম এমনকি কোন অঙ্গ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়লেও তা পুনর্গঠন করে নিতে পারে।
🌊Underwater Adaptation:
পানির নিচে নানাওয়ের ক্ষমতা আরো সাবলীলভাবে প্রকাশ পায়। পানির উচ্চ চাপেও ওর কোন সমস্যা হয় না যার ফলে সমুদ্রের তলদেশেও স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারে। মারাত্মক দ্রুতগতিতে সাঁতার কাটতে পারে। বলা যায় পানির নিচে থাকাকালীনই ও সবচেয়ে শক্তিশালী। 
🌊Claws / Teeth:
কিং শার্কের অস্ত্র হিসেবে রয়েছে মারাত্মক ধারালো দাঁত এবং থাবা যার সাহায্যে স্টিল, কংক্রিটের মত শক্তপোক্ত জিনিস সহজেই গুড়িয়ে দিতে পারে এবং এগুলো ভেঙে গেলেও শীঘ্রই গজিয়ে নিতে পারে।
 ওর দাঁত দিয়ে ডিসির OMAC নামক মারাত্মক পাওয়ারফুল এক চরিত্রের আর্মর ভেদ করতে সক্ষম হয়েছিল (কেউ OMAC সম্পর্কে জানতে চাইলে কমেন্টে জানান)।
🌊Enhanced Senses / Sonar:
অন্ধকার সমুদ্রতলেও দিব্যি দেখতে সক্ষম। তার সাথে আরো আছে সোনার (এইটা SONAR উল্টাপাল্টা কিছু মাথায় আইনা শিঙ গজানোর চেষ্টা কইরেন না) তরঙ্গ এবং এনহ্যান্সড সেন্স অব স্মেল বা গন্ধ শোঁকার ক্ষমতার মাধ্যমে পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি এবং বস্তু চিহ্নিত করার ক্ষমতা এবং এই ক্ষমতা সমুদ্রপৃষ্ঠের ওপরেও কাজ করে। এছাড়া কোন পৃথিবীর কোন স্থানের পানির স্বাদ নিয়েই সে সেই স্থান চিহ্নিত করতে পারে।
🌊Inteligence / Experience:
কিং শার্ক অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মানুষের মতই বুদ্ধি এবল চিন্তাশক্তির অধিকারী তবে ওর মধ্যে পশুত্বর প্রভাবই তুলনামূলক বেশি দেখা যায়। সে কথা বলতে এবং পড়তেও পারে। কমিকে এটাও দেখা গেছে যে সে তরবারি চালনায়ও দক্ষ।
আশ্চর্যজনকভাবে সে ভেজিটেরিয়ান হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় ভোগে ভেতরে ভেতরে।

Leave a Comment

Total Views: 283

Scroll to Top