শাযাম মুভি রিভিউ

শাযাম ২০১৯ মুভি বাংলা রিভিউ – শ্যাজাম

শাযাম মুভি . Shazam Movie review in bangla. । শ্যাযাম মুভি রিভিউক্যাপ্টেন মার্ভেল নাম শুনলেই মনে হতে পারে যে হয়ত এটা কোন মার্ভেলের সুপারহিরো । কিন্তু না ক্যাপ্টেন মার্ভেল সম্পুর্ণ আলাদা একটি পরিবারের একটা অংশ। যারা ডিসি কমিক্সের অধিনে রয়েছে।

তাহলে ক্যাপ্টেন আমেরিকার সাথে কি এই মার্ভেল বা শ্যাযামের কোন যোগসূত্র আছে নাকি? উত্তর না। স্যাযাম যখন প্রথমবার কমিকস দুনিয়ায় আসে তখন এর নাম ক্যাপ্টেন মার্ভেল রাখা হয়। এবং এদের আরও সদস্য থাকায় একত্রে তাদের কে মার্ভেল ফ্যামিলি বলা হত। কিন্তু মার্ভেল কমিক্স নামে অন্য একটা কমিক কোম্পানির নামের সাথে মিলে যায় দেখে এর নাম পরিবর্তন করে সাযাম রাখা হয়।

এবার চলুন Shazam 2019 মুভিটা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই

……………….SPOILER FREE ……………। শ্যাজাম মুভি রিভিউ । স্যাজাম মুভি রিভিউ । স্যাযাম মুভি রিভিউ ।

শায্যাম ২০১৯ সিনেমা রিভিউ

ডিসির নতুন মুভি স্যাজাম। সুপারহিরো মুভি নাকি ? তাহলে তো আপনি একেবারে নিশ্চিত চোখ ধাধানো ভিএফএক্স দিয়ে মাথা নষ্ট করে দিবে।

ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক একদম রক্ত কনিকায় শিহরন বইয়ে দিবে, একশন সিনগুলা চোখে তো ভাসবেই, একদম ফাটাফাটি অবস্থা হয়ে যাবে।

কিন্তু না!!! এই মুভিতে আপনি এগুলার কিছুই পাবেন না !!! একশন কম ? ওই বড় মানুষের দেহটার ভিতরে একটা ১৪ বছরের বাচ্চা ছেলের আবাস?। ধুর, তাইলে এইডা কি সুপারহিরো মুভি হইলো? দেখবেন না !? । দাঁড়ান তাহলে?।

জ্বি ভাই সত্যিটা শুনুন তাহলে, আপনি উপরে বর্নীত এগুলার কিছুই পাবেন না এই মুভিতে। তাহলে কি দেখবেন? বা সিনেমাটিতে দেখে কি পাবেন জানতে চান?

সোজা কথায় উত্তর হল :- মন ছুয়ে দেয়া রিফ্রেশমেন্ট, হৃদয়ে দোলা দেওয়া ইমোশন, পরিপূর্ণ হিউমার, এবং রক্ত শিহরন করা গুসবাম্প।

আপনার কি মন খারাপ? হয়তো অনেক ডিপ্রেশড হয়ে আছেন। তাহলে আসুন ভিন্ন ধারার এই সুপারহিরো মুভি দেখুন । প্রমিজড আপনার মন এক ঝটকায় ভালো হয়ে যাবে

পুরো ২ ঘন্টা ১২ মিনিট ধরে আপনি ডুবে থাকবেন এক অন্যরকম হাসির রাজ্যে। আপনার মনে পরে যাবে যে, আপনার বাসায়ও আছে এক ফ্যামিলি৷ আপনি একা মানুষ না আপনারও আছে অঢেল ভালোবাসার জোয়ার । মুহুর্তের মধ্যেই আপনার মন যেনো পুরোপুরি রিস্টার্ট নিয়ে নিবে

পুরো রিফ্রেশ হয়ে যাবে আপনার শরীর । নিজের পরিবারের সদস্যদের আরোও কাছে নিয়ে আসবে আপনাকে ।

Read More: ইটারনালস মুভি রিভিউ ^

Shazam মুভি বিস্তারিত

মুভির ফার্স্ট হাফ একটু স্লো লাগলেও বিলি যখন শ্যাজাম হয়, তারপর মুভির গতি আবার দ্রুত হয়। যদিও কিছু কিছু ক্ষেত্রে সিনেমার গতি বেশি কিংবা খাপছাড়া হয়ে যাচ্ছিল ।

তবে পরিচালক অনেক চমক রেখেছেন, যা তিনি ট্রেইলারে প্রকাশ করেন নি। ট্রেইলার দেখে আপনার মনে হতে পারে, পুরো মুভি কমেডি তে ভরপুর। কিন্তু মুভিটা শুধু কমেডির মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল না!।

মুভিটিতে অনেক সিরিয়াস মোমেন্টও ছিল। সেই সাথে ছিল ইন্সপিরেশন মুলুক দৃশ্য যা আপনার পরিবার নিয়ে ধ্যান ধারণা বদলে ফেলবে।

শ্যাযাম এর যা ভালো লেগেছে এবং ভালো লাগেনি

সাত ভাই চম্পা ব্যাপারটা এতো ভালো লাগে নাই ( বিষয় টা মুভি দেখলেই বুঝবেন )।

ফ্রেডি আর বিলির পার্টনারশিপটা জোশ ছিল। সেই সাথে তাদের ফস্টার ফ্যামিলির রাসায়নটা খুবই ভালো লেগেছে!।

মুভিটা ফ্যামিলির মর্মটা বুঝাতে বাধ্য করে। এই মুভি শুধু বাচ্চাদের না। আমার মনে হয় এইটা ফ্যামিলি নিয়ে দেখা উচিত।

মুভিতে অন্য সুপারহিরোদের রেফারেন্স দেওয়া খুব ভালো লেগেছে! যেমন একুয়াম্যান ও ব্যাটম্যান।

মুভিতে কমেডি টাইম টু টাইম দেওয়া হয়েছে। তবে জোর করে হাসানের চেষ্টা করেনি।

মুভিতে জোড় করে কোন কমেডি দেওয়া হইনি যা ক্যাপ্টেন মার্ভেল মুভিতে বিদ্যমান ছিল।

আপনি যখন পুরোপুরি হাসি ইমোশনের জগতে ঢুকে যাবেন, তখনি হঠাৎ করে ! শেষ হাফে আপনার চিন্তার বাইরে যেয়ে মুভি স্টোরি পুরো ৯০° এংগেলে ঘুরে যাবে।

শেষের সিন গুলিতে গুসবাম্প শরীরের প্রতিটি জায়গায় আপনাকে কাপাতে থাকবে।

মুভির এন্ড এ দুইটা সুপারহিরোর ক্যামিও আছে ( সুপার হিরোর নাম বললাম না) সারপ্রাইজ হিসেবে রেখে দিলাম।

Read Also: ব্লাক এডাম মুভি রিভিউ

শায্যাম মুভির অভিনেতা ও অভিনেত্রীদের তালিকা

সিনেমার কাস্টদের কথা বললে আমার অল্প কয়েক জনকে বাদে আসলে বাকি সবাইকেই বেশ ভালো লেগেছে।

জ্যাচারি লেভির সাথে পরিচয় টিভি সিরিজ Chuck এর জন্য । কিন্তু পরে Marvel studios এর Thor: the Dark world আর Thor: Ragnarok মুভি গুলিতে থরের বন্ধু হিসেবে দেখেছি।

zachary levi just nailed his role as shazam, পুরাই ফাটিয়ে দিয়েছে সে। কখনো ভাবি নি, জ্যাচারি লেভি এত সুন্দরভাবে স্যাজাম চরিত্রে নিজেকে মানিয়ে নিবে। আসলে জ্যাচারি লেভির জন্মই হয়েছে যেন, স্যাজাম চরিত্রে অভিনয় করার জন্য।

Asher angel as Kid shazam পুরাই ফাটিয়ে ফেলেছে। আশার আঞ্জেলকে প্রথম দেখেছিলাম Disney এর Andi Mack টিভি সিরিজে

মার্ক স্ট্রং কে এর আগে কিংসম্যান মুভি সিরিজে দেখেছি পজিটিভ রোলে। তবে এবার তাকে নেগেটিভ রোলে দেখা গেল।

মার্ক স্ট্রং কে ভিলেন Doctor Sivana চরিত্রে আহামরি না লাগলেও, মুটামাটি মানের লেগেছে।

হয়ত অনেকের কাছে ভিলেনের চরিত্রটি এভারেজ লাগতে পারে কিন্তু Mark strong এর অভিনয়ের জন্য সেটা এড়ানো যায়।

বাকি ছোট শিশু/টিনেজ অভিনয়শিল্পী রা সবাই যে যার চরিত্রে ছিল , তারা সেই চরিত্রে ভালো অভিনয় করেছে।

একেকটি চরিত্রে শিশু/টিনেজ অভিনয়শিল্পীরা পার্ফেক্ট মানিয়ে নিয়েছে নিজেদেরকে ।

এক কথায় ডিসির এই মুভিটি আসলেই অসাধারণ হয়েছে। জাস্টিস লীগ ফ্লপ হওয়ার পর যারা বলেছিলঃ ডিসি শেষ, ডিসি শেষ, তাদের জন্য এই মুভি!!! । এক্যুয়াম্যান এর পর আর ও একটা বাজিমাত করল ডিসির এই মুভিটা৷ সর্বশেষ বলব ডিসি কাম ব্যাক ।

শাযাম বক্স অফিস কালেকশন রিপোর্ট

ডমেস্টিক – ১৪০.৪ মিলিয়ন ডলার ( ১১৮২ কোটি ২৩ লাখ টাকা)

ওভারসীস – ২২৫.১ মিলিয়ন ডলার ( ১৮৯১ কোটি ৫৬ লাখ ৮০ হাজার টাকা )

টোটাল ওয়াল্ডওয়াইড – ৩৬৬ মিলিয়ন ডলার (৩০৭৩ কোটি ৭৯ লাখ ৮০ হাজার টাকা)

তবে মুভিটা হিট হতে $২৩৫ থেকে $২৫০ মিলিয়ন ডলার লাগত সিনেমাটি ব্যাবসা সফল হতে।

প্রি রিলিজে ৩.৩ মিলিয়ন ডলার কালেক্ট করে, ডিসির আরেকটি মুভি একুয়াম্যান এর ২.৯ মিলিয়ন ডলার ডমেস্টিক রেকর্ড ব্রেক করে।

রিলিজের প্রথম দিনেই ২০.৫ মিলিয়ন ডলার তুলে নেয়। সেই সাথে প্রথম সপ্তাহে ৫৩.৪ মিলিয়ন ডলার তুলে নেয়।

দ্বিতীয় সপ্তাহে সিনেমাটি বক্স অফিসে প্রথম স্থান ধরে রেখে ২৫.১ মিলিয়ন ডলার তুলে নেয়।

চতুর্থ সপ্তাহে বক্স অফিসে ৫ম স্থান দখলে রেখে মাত্র ৫.৮ মিলিয়ন ডলার আয় করে। যার ফলে এভেঞ্জার্স: এন্ডগেম আর ক্যাপ্টেন মার্ভেল shazam কে পেছনে ফেলে দেয়।

চীনে মোট কালেকশন: ৪৩.৫ মিলিয়ন ডলার।

যুক্তরাজ্যে মোট কালেকশন: ১৫.৩ মিলিয়ন ডলার।

মেক্সিকো তে মোট কালেকশন: ১০.৬ মিলিয়ন ডলার।

অস্ট্রেলিয়া তে মোট কালেকশন: ১০.৩ মিলিয়ন ডলার।

রাশিয়া তে মোট কালেকশন: ৮.৪ মিলিয়ন ডলার।

২৬ এ এপ্রিল এভেঞ্জার্স: এন্ডগেম রিলিজ এর কারনে বক্স অফিস কালেকশন ধীরগতি হয়ে যায়।

তারমানে বিশেষজ্ঞরা বলেছিল প্রথমদিন ডমেস্টিক ২০ মিলিয়ন সহ ওয়ার্ল্ডওয়াইড ৪০-৬০ মিলিয়ন ডলার হবে। কিন্তু হল একদম ভিন্ন। সকল হিসাব নিকাশ ভুল প্রমান করে shazam প্রথম ওইকেন্ড এই ডমেস্টিক এ ৫৩+ মিলিওন ডলার আর ওয়াইল্ডওয়াইড ১০০+ মিলিওন ডলার ঘরে তুলে নেয়।

সব মিলিয়ে প্রথম উইকেন্ডেই ১৫৩+ মিলিওন ডলারের বেশি ঘরে তুলে ফেলেছে শাযাম । যা মুভির বাজেটের প্রায় দেড়গুণ । একুয়াম্যান এর ডমেস্টিক রেকর্ড প্রথম ওইকেন্ডেই ভেংগে ফেলে দেয় শাযাম ।

স্যাযাম মুভি রিভিউ বাংলায়
Shazam 2019 Movie Review
(Image Credit: DC/WB Pictures)

Shazam Movie Trailer Review in Bangla

২০১৮ এর এপ্রিলে প্রথম বারের মতো সাজাম এর কোন দৃশ্য জনসম্মুখে প্রকাশিত করা হয় লাস ভেগাসের সিনেমাকন কনভেনশন এ ।

২১শে জুলাই ২০১৮ তে সান ডিয়েগো কমিক কনে প্রথম টিজার ট্রেইলার প্রদর্শন করা হয়।

এর পরে ৪ই মার্চ ২০১৯ এ নতুন ট্রেইলার প্রকাশ করা হয়।

২ জুলাই ২০১৯ এ ডিজিটাল রিলিজ আর ১৬ ই জুলাই ২০১৯ এ ব্লুরে রিলিজ হয়।

এছাড়াও ১২ই আগস্ট ২০১৯ এ ৪কে আল্ট্রা এইচডি রিলিজ হয়।

সর্বশেষ আগস্ট ২০২০ পর্যন্ত পাওয়া তথ্যমতে শ্যাযাম ডিভিডি ক্যাসেট বিক্রি করে $৮.৩ মিলিয়ন ডলার আয় করেছে

অন্যদিকে ব্লুরে ডিস্ক সেল করে $২১ মিলিয়ন ডলারের উপরে আয় করে ।

শ্যাজামের জাত শত্রু ব্লাক এডামের অরিজিন জেনে নিন। আগামী ২০২২ এ আসছে ডোয়েইন জনসন ওরফের দ্যা রক খ্যাত অভিনেতার Black Adam মুভিটা৷

সবমিলিয়ে ডমেস্টিক ভিডিও সেল করে টোটাল $২৯.৪ মিলিয়ন ডলার আয় করেছে স্যাজাম মুভিটা।

Shazam 2019 Movie Review in Bangla With Box Office Collection Report

সর্বশেষ একটি কথাই বলব:- স্যাজাম এক অন্যরকম সুপারহিরো মুভি যা আপনাকে অন্যরকম স্বাদ দিবে । এখানে কোন রকম লেইম জোক ছাড়াই আপনাকে নিয়ে যাবে হাসির রাজ্যে । ফ্যামিলি ইমোশনের রাজ্যে, মন রিফ্রেশমেন্টের রাজ্যে । আর যখন সিনেমা শেষ হবে তখন আপনি অবশ্যই বলতে বাধ্য হবেন- JUST SAY THE WORD – SHAAZAAAM !!!

DC-Universe, dc, movie-review, shazam, superhero, box-office-collection, mcu, শাযাম মুভি বক্স অফিস কালেকশন,শাযাম মুভি,শাযাম মুভি রিভিউ, shazam movie review in bangla, ,শ্যাজাম মুভি রিভিউ, স্যাজাম মুভি রিভিউ, স্যাযাম মুভি রিভিউ, Shazam! movie review in bangla, ছোট একটা ম্যাজিক ওয়ার্ড, শ্যাজাম সিনেমা রিভিউ, স্যাজাম ২০১৯ চলচ্চিত্র, স্যাজাম ২, ক্যাপ্টেন মার্ভেল, স্যাজাম, স্যাজাম মুভি বাংলা রিভিউ, স্যাজাম মুভি রিভিউ, শ্যাজাম মুভি রিভিউ, শ্যাজাম ২ কবে আসবে?,

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.