‘রাইজ রোর রিভল্ট’, RRR Movie Bangla Review

rrr movieg bangla review staring ram charan jr ntr - ‘রাইজ রোর রিভল্ট’, RRR Movie Bangla Review

‘রাইজ রোর রিভল্ট’, সংক্ষেপ এ RRR 

২০১৭ তে মুক্তি পেলো Bahubali The Conclusion 

দীর্ঘ ৫ বছর অতিবাহিত হয়ে গেলো। কিন্তু এস এস রাজামৌলির আর কোনো কাজের দেখা পেলোনা সিনেমাপ্রেমীগণ। কিন্তু তারও একটা বিশেষ কারণ হচ্ছে এই “RRR”। আসলে তিনি যেনো তেনো কাজে হাত দেন না। বিগ বাজেট,হিউজ দর্শকপ্রেমী সেলিব্রিটিগণ,আর ব্যাপক আয়োজন নিয়েই তিনি কাজ করতে স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। আর সেটা উনার সাথেই যায়।

 দক্ষিণের দমকা হাওয়া আর সেই সাথে রয়েছে আরব সাগরের ঢেউ। 

 Jr NTR এবং Ram Charan-এর সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করেছেন আলিয়া ভাট । রয়েছেন অজয় দেবগণও।

 

তবে  এতেই কি সিনেমা হিট হয়ে যাবে? উত্তরটা হলো  না।

আসলে তিনি এই ধ্যান ধারণা নিয়ে চলেন না। 

আর এটাই তাকে সবার থেকে আলাদা করে রাখে।

তিনি সর্বদাই ব্যাপক   জোর দেন সিনেমার কনটেন্টে, সিনেমার মান নির্ণয় এ, মনোনিবেশ করেন ভালো একটা কাজ  উপহার দিতে। একটা কমপ্লিট প্যাকেজ যাকে বলে।

RRR প্রেক্ষাপটঃ-

 ১৯২০-এর দিল্লি। চরিত্রের রামারাজুকে ” রামচরণ” একদিকে যেমন ব্রিটিশ পুলিশ সম্মান করে তদ্রুপ ভয়ও পায় প্রচুর। আবার সেই রামারাজুকেই নেটিভ হওয়ার জন্য মাঝে মধ্যে হেয়ও করা হয়। 

 

অন্যদিকে গোন্ড সম্প্রদায়ের সহজ সরল একজন যোদ্ধা  ভীম “এন টি আর” যার  দুই বাহুতে ভীমের মতোই প্রচুর শক্তি। তবে সেই শক্তি বা বল সে  যখন তখন  ব্যবহার করে না। 

ভীম দিল্লিতে আসে মাল্লীকে “মানে একটা মেয়ে যাকে ভীম এর গ্রাম থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে আসা হয়” লেডি স্কটের হাত থেকে মাল্লীকে  উদ্ধার করার জন্য ভীম দিল্লিতে আসে।

এতক্ষণ যা বললাম,আসলে  এটাই কি সিনেমার  গল্প? না। এটা তো সবেমাত্র সিনেমার ১ চতুর্থাংশ। পিকচার আভি বাকি হ্যা মেরে দোস্ত😎

মূলত এখানে নিজেদের  অধিকার আদায়ে পুরো  ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সাথে  সশস্ত্র লড়াইকেই দেখানো হয়েছে।

 তবে হ্যাঁ, সিনেমা যেহেতু এস এস রাজামৌলির তাই পদে পদে সারপ্রাইজড আপনি হবেনই এটা মাস্ট শিউর।

ইতোমধ্যে অনেকেই এটির আয় নিয়ে প্রেডিকশন করতেছেন, এটার ওপেনিং ডেতেই কম্পক্ষে ২০০ কোটির মতো আয় করতে পারে বলে ধারণা করা হয়েছিলো, কিন্তু সেই হিসেব কষে এখন কি লাভ? ফলাফল তো কয়েকসপ্তাহ পরই পাওয়া যাবে। 

 তবে মালালায়াম ভার্সনে গতকাল আয় করেছে  কম্পক্ষে ৩ কোটি রুপি,আর তামিল ভার্সনে ৮ কোটি,কন্নড় ভার্সনে ১৩ কোটি রুপি হিন্দি ভার্সনেও প্রচুর,প্রায় ১৫ কোটির রুপি মতো। 

 আর ইতোমধ্যে এই মুভি তেলুগু  স্টেট থেকে সবচেয়ে বেশি কালেকশন করতেছে,  তেলুগু শো রাতের ১ টা থেকেই চালু হয়ে গেছে আর এই মুভির তেলুগু টিকিট প্রাইস প্রায় দুই হাজার থেকে আড়াই হাজার রুপি  করে বিক্রি চলতেছে। 

তাই ধারণা করা হচ্ছে এই মুভি শুধু তেলুগু স্টেট থেকেই গ্রোস কালেকশন করতে পারে  কমপক্ষে ১১০ কোটি রুপি। ফার্স্ট ডে-তে পুরো ইন্ডিয়ায় গ্রোস কালেকশন কমপক্ষে ১৫০ কোটির মতো হতে পারে।   

আর Overseas Gross Collection…. কমপক্ষে ৬৫ কোটির মতো হতে পারে।

তারমানে ওপেনিং ডেতে সর্বমোট ইন্ডিয়া গ্রোস কালেকশন ১৫০ কোটির মতো হচ্ছে। 

তাহলে  Worldwide গ্রোস কালেকশন ২১০ কোটির মতো হতে পারে,,  যেটা আসলেই হিউজ একটা রেসপন্স।

RRR Movie Review in Bangla
(copyright: Youtube)

RRR ওয়ার্ল্ডওয়াইড ওপেনিং ডে কালেকশন 

___________________________________

🔹তেলুগু স্টেটস → ১০৪ কোটি

🔹নর্থ ইন্ডিয়া → ২৫ কোটি

🔹কর্ণাটক → ১৩.৭০ কোটি

🔹কেরালা → ৪ কোটি

🔹তামিলনাড়ু → ১০.৫০ কোটি

🔹ওভারসীস → ৬৭ কোটি

🔸ডমেস্টিক নেট → ১৩০ কোটি

🔸ওয়ার্ল্ডওয়াইড শেয়ার → ১২৮ কোটি

🔸ওয়ার্ল্ডওয়াইড গ্রোস → ২২৪.২০ কোটি

🔥 ALL TIME RECORD 🔥

দ্যা ফ্ল্যাশ এপিসোড ৭ বাংলা রিভিউ

_____________________________________

👉 বাহুবলী ২ এর পর ওপেনিং এ ভারতের ২য় সিনেমা হিসেবে ১৫০,২০০ কোটি ওয়ার্ল্ডওয়াইড গ্রোস, ১০০ কোটি ডমেস্টিক নেট, ৫০ কোটি ওভারসীস গ্রোস তোলার রেকর্ড 

👉 নন তামিল মুভি হিসেবে তামিলনাড়ুতে রেকর্ড  ওপেনিং

👉 কেরালায় তেলুগু মুভি হিসেবে ২য় সর্বোচ্চ ওপেনিং। শুধু বাহুবলী ২ বিট করতে পারেনি

👉 কর্ণাটকে নন কন্নড় মুভি হিসেবে ২য় সর্বোচ্চ ওপেনিং

👉 রাজমৌলি,  এনটিআর এর চতুর্থ এবং রামচরণের ৩য় রেকর্ড ওপেনিং

👉 তেলেঙ্গানা প্রদেশে প্রথম ২০ কোটি শেয়ারের ওপেনিং

👉 ওপেনিং এ অন্ধ্রপ্রদেশে প্রথম ৫০,৭৫ কোটি গ্রোস তোলার রেকর্ড 

👉 ডমেস্টিক, ওভারসীস, ওয়ার্ল্ডওয়াইড অল টাইম রেকর্ড ওপেনিং ভারতীয় মুভি হিসেবে

👉 হিন্দি ভার্ষণে ১৯ কোটি ডমেস্টিক নেট। বাহুবলী ২ এবং সাহোর পর সাউথ মুভি হিসেবে সর্বোচ্চ

BATMAN V SUPERMAN: DAWN OF JUSTICE সিনেমা

RRR Second Day Advance Booking Report

—————— 

সকালের শো বা দিন শুরু হতে হতে দ্বিতীয় দিনের এডভান্স সেল আরো বৃদ্ধি পাবে। এই মূহুর্তে দ্বিতীয় দিনেও ভারতে মোট ৪৮ কোটির এডভান্স বুকিং সেল হয়েছে। মানে দ্বিতীয় দিনেও ডমেস্টিক বাজারে ১০০ কোটি+ আয় করবে এই সিনেমা। 

যেখানে ওপেনিং ডে তেও হায়দ্রাবাদের এডভান্স টিকিট সেল ১০ কোটি হয়নি কোনো সিনেমার ; সেখানে RRR ব্যাক টু ব্যাক শুধু হায়দ্রাবাদ সিটি থেকেই ১০ কোটি+ এডভান্স সেল দিয়েছে। 

প্রথম দিনের এক্সাক্ট কালেকশন আগামীকাল আসবে। তবে প্রাথমিক ধারণা অনুসারে ডমেস্টিক বাজারে ১৫০ কোটির আসেপাশে একটা গ্রোস কালেকশন আসতে পারে। ওভারসীস মিলিয়ে ২০০+ শিওরশট…! 

ওপেনিং ডে ডমেস্টিক নেট ১২৫ কোটির আসেপাশে হতে পারে। যা বলিউড সিনেমার রেকর্ড ওপেনিং WAR এর আড়াই গুন। 

——————

BAAHUBALI 2, RRR ভারতীয় সিনেমার মধ‍্যে শুধু এই দুটি সিনেমা ১৫০ কোটি ওয়ার্ল্ডওয়াইড গ্রোস, ১০০ কোটি ডমেস্টিক নেট এর ওপেনিং দিতে পেরেছে। RRR যদি ২০০ কোটির ওয়ার্ল্ডওয়াইড ওপেনিং দেয় তাহলে ২০০ কোটির ওপেনিং এ দুটি হবে ভারতীয় মুভির মধ‍্যে।

আর কমন নাম একটাই ” রাজামৌলি ” 👑🔥

তার শেষ সিনেমা USA তে ZERO SHARE তুলে Colossal Disaster হয়েছিলো। সেই Ram Charan ; Jr NTR আর SS Rajamouli কে সাথে RRR নিয়ে আসলো। 

Premier থেকেই USA তে $3.3 Million তুলে নিয়েছে ✅

তার Zanjeer এর অভিনয় নিয়ে ভয়ানক ও বিলো দ্যা বেল্ট ট্রল করেছিলো ক্রিটিক্সরা। তাকে Golden Kela, Ghanta Awards দিতে চেয়েছে। আজ তার পারফরম্যান্স এর সুনাম সেই বলিউড ক্রিটিক্সরা করছে। 

ভালো ডিরেক্টর এলে রামচরণ নিজের সেরাটা দিতে পারে – Magadheera, Rangasthalam এবং RRR তার প্রমাণ।

হায়দ্রাবাদের RTC X Roads এ ওপেনিং ডে তে আগের অল টাইম রেকর্ড কালেকশন তোলা Pushpa : The Rise এর ৪১,৩১,৪৪৫ রুপির কালেকশনকে এখনো হাফ ডে বাকি থাকতেই মাত্র ২১ শো তেই বিট করে ফেললো SS Rajamouli এর RRR 

RRR এর ২১ শো এর টোটাল কালেকশন এইখানে ৪৬,৩৯,৭২২ রুপি। All Time Record 🔥

‘RRR’: On Fire💥 RRR এর বাইরের দেশগুলোতেও সাফল্যে জলে উঠছে 💥

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একটি বিধ্বংসী সূচনা করেছে… প্রিভিউ স্ক্রীনিং [বৃহস্পতিবার]…

⭐️ USA: $3,198,766

⭐️ কানাডা: $270,361

⭐️ উত্তরআমেরিকা [USA + কানাডা]: $3,469,127 [₹ 26.46 কোটি]

⭐️ ইউকে: £238,313 [₹ 2.40 কোটি]

⭐️ অস্ট্রেলিয়া, NZ [শুক্র] অসাধারণ।

(সূএ মতে ইন্ডিয়াতে আনুমানিক ৫০কোটি ++ এর নিউস শোনা গেলেও সেটা এখনও এনাউন্সমেন্ট হয়নি)

যেই সিনেমা হলে ‘RRR’ দেখানো হবে সেই সিনেমাহল   পুড়িয়ে দেওয়া হবে’, ১০ নভেম্বর ২০২০ এ এমনই একটা  হুমকি দিয়েছিলেন  বিজেপি নেতা “বান্দি সঞ্জয় কুমার”

আলোচনার সূত্রপাত হয় মূলত টিজারটি প্রকাশ্যে আসার পর। উনার মন্তব্য হচ্ছে.. আদিবাসী নেতার পরনে মুসলিম পোশাক কেন? কেন তাঁর চোখে সুরমা আর মাথায় ফেজ টুপি? তা নিয়েই প্রকাশ্য জনসভায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন বান্দি সঞ্জয় কুমার।

 এটা তো অনেক আগের কথা। আর এখন তো পুরো সিনেমাই দেখা হয়ে গেলো,কিন্তু সমালোচনামূলক তেমন কোনো সীন-ই চোখে পরেনি।

আসলে  এখানে প্রথম কথাটা উল্ল্যেখ করার কারণ হচ্ছে, বিজেপি নেতারা আসলে কি? মানে মুসলিম, ইসলাম,এগুলি ছাড়া তাদের আর কি কোনো Subject নেই?🤷‍♂️

তো চলুন এখন পুরো সিনেমা নিয়ে কিছু কথা বলা যাক,

তার আগে উক্ত সিনেমার কিছু তথ্য শেয়ার করে নেই।

★RRR’ হলো ভারতীয় সিনেমা ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বাজেটের সিনেমা। বিগ বাজেটের এই সিনেমাটির শুধু নির্মাণ ব্যয়ই ৩০০ কোটি রুপি। তাও কলাকুশলীদের পারিশ্রমিক ব্যাতিতই।

★সিনেমার বাজেট যেমন হিউজ, উক্ত সিনেমা রলিজের আগেই এটির হল স্বত্ব, ডিজিটাল ও মিউজিক রাইট দিয়ে অনেক আগেই প্রোডিউসারগণ লাভের মুখ দেখে ফেলেছেন।

★ RRR সিনেমার মধ্য দিয়ে এই প্রথমবার, জুনিয়র এনটিআর ও রাম চরণ একসঙ্গে একটি সিনেমায় অভিনয় করেছেন।

★আলিয়া ভাট এবং অজয় দেবগন এক সাথে এই প্রথমবার   কোনো তেলেগু সিনেমায় কাজ করলেন। 

RRR নিয়ে হলিউডের এত মাতামাতি কেন?


RRR এর Naacho Naacho AKA Naatu Naatu, Golden Globe এ Best Original Song Award পেয়েছে। গোল্ডেন গ্লোব আমেরিকার সবচেয়ে কনজারভেটিভ এওয়ার্ড সেখানে যদি এই গান পুরষ্কার পেয়ে থাকে তাহলে ধরে নেন অস্কারেও এর সম্ভাবনা আছে।


এখন এইযে আমাদের মত যারা গ্রামের চাচাত ভাই আছি তারা ত শহরের চাচাতো ভাইয়ের সরিষা ক্ষেতে ফটোসেশন, পুকুরে মাছ ধরা নিয়ে উচ্ছ্বাস দেখে একে অপরের উপর হেসে লুটিয়ে পরছি। মানে রাজামৌলির এই সিনেমা নিয়ে হলিউডের আদিখ্যেতা দেখে হাসাহাসি করছি। কেউ বলছে ব্রোম্যান্স দেখে এই মুভিকে প্রো এলজিবিটিকিউ ভেবে এপ্রিশিয়েট করছে, কেউ বলছে টেক কোম্পানি গুলো ভারতীয়দের হাতে তাই এই মুভিকে ট্র্যান্ডি করে দিচ্ছে। ব্লা ব্লা ব্লা……। কিন্তু আসলে কি জন্য হলিউডের এই উচ্ছ্বাস?


ক্রিস গোর আমেরিকান ইন্ডিপেন্ডেন্ট ফিল্ম মেকার ও ফিল্ম ক্রিটিক, ফিল্ম কারেজ এর সাথে এক সাক্ষাৎকারে বলেন
RRR is Everything Hollywood Movie wish they had today.
এর মানে কি?


এর মানে হচ্ছে হলিউডের দর্শক মোড়াল পুলিশিং, প্রিচি্ লেকচারিং ও পলিটিকাল কারেক্টনেস এগুলো নিয়ে মুভি দেখতে দেখতে বিরক্ত। এখন ত সুপার হিরো মুভিগুলোতেও শুরু করে দিছে।
ওল্ড হলিউড মুভির ফ্লেভারঃ হলিউডের ৬০-৮০ দশকের মুভিতে যেমন হিরোইজম গুড ব্যাড এগুলো নিয়ে মুভি বানাতো সেই একই ফর্মেটে RRR এর গল্প বলার ধরন। তাই দর্শক কে ১০০ থিওরি মাথায় রেখে এই মুভি দেখতে হয় নাই। ভীম বাঘের সাথে যুদ্ধ করতে পারে কারণ সে ভালোর দলে এর চাইতে বেশি বুঝার দরকার নেই।


সাধারণ একজন ব্যক্তির অসাধারণ সব কার্যকলাপ। রাম যখন একাই শতশত প্রোটেস্টরের সাথে ফাইট করে একজনকে ধরে নিয়ে আসে তখন তাকে সুপার হিরো হইতে হয় নাই তাকে দেখানো হয়েছে একজন ফোকাসড পুলিশ অফিসার হিসেবে। এবং এই ফাইট সিকোয়েন্স গুলো দেখানো হয়েছে অসাধারণ ভাবে।
RRR কে কোন জনরায় ডিভাইড করা যায় না, নিঃসন্দেহে এটি একটি একশন মুভি, কিন্তু এর মাঝ ড্রামা আছে, ইমোশন আছে, সোসিয়াল হারমনি নিয়ে কথা বলা হয়েছে আবার নিজেকে রক্ষার জন্য গোলাবারুদ ও যে লাগে সেটাও দেখানো হয়েছে। আমেরিকার একটা অনেক বড় ডিবেট তাদের সেকেন্ড এমেন্ডমেন্ট, মানে লিগ্যাল গান ঔনারশিপ।

RRR এ দেখানো হয়েছে নিজের সার্বভৌমত্ব টিকিয়ে রাখতে অস্র (বন্দুক) কতটা জরুরি।
একটা ৭৫ মিলিয়ন ডলারের মুভির ভিজুয়াল এফেক্ট ২০০ মিলিয়ন ডলারের সিনেমাকেও টক্কর দিতে পারে তার অমূল প্রমাণ। RRR মুভি ইউ এস মার্কেটে লঞ্চ হয় ব্যাটম্যানের সাথে, আমেরিকান মুভি প্রেমিকদের কাছে ব্যাটম্যান মুভি মানে একটা অন্য রকম বিষয়, তাই এই মুভির সাথে টক্কর দিয়েRRR আলোচনায় আসতে সক্ষম হয়েছে। মানে এই ধরনের দৃশ্য উপস্থাপন করতে এত বাজেটের দরকার নেই তা রাজামৌলি দেখিয়ে দিয়েছেন।


নাচু নাচু (Naato Naato) গানটা শুধু একটা ড্যান্স নাম্বার না, ব্রিটিশ কলোনির পার্টিতে গিয়ে তাদের নাক উঁচু ভাবকে ভেঙ্গেছে এই গান ও নাচ এইটা সিনেমার চিত্রনাট্যে দারুণ ভাবে সেট করেছে। যদি এই নাচের সিকোয়েন্সটা না থাকত তবে এই দুই ওয়ার্ল্ড এর মাঝে পার্থক্যটা ফুটিয়ে তুলা সম্ভব হত না।


এসবের চাইতেও বেশি যে ব্যাপারটা তারা পছন্দ করেছে তা হচ্ছে সিম্বলিজম, আগুন ও পানির পাশাপাশি অবস্থান। এখানে দুইজন ব্যক্তির গল্প বলা হয়েছে যারা একই উদ্দেশ্যের কাজ করছে কিন্তু দুই রকম ভাবে, মানে আমাদের মতবাদ ভিন্ন হইতে পারে কিন্তু আমাদের উদ্দেশ্য এক হলে আমরা যে কোণ কিছুর সাথে লড়াইয়ে জিততে পারব। যার অর্থ ভিন্ন মতবাদের দুইজন ব্যক্তি বা দুইটি জাতি ধর্ম বর্ণ এক উদ্দেশ্য নিয়ে সমভাবে অবস্থান করতে পারে।


আমার এই পোস্ট দেখে আবার ভাইবেন না আমি RRR এর বিশাল ভক্ত। আর বাকি এন্টারটেইনিং মুভি দেখে যেমন লাগে আমার ও তেমনই লাগছে। আমি জাস্ট তুলে ধরতে চেয়েছি কেন ওয়েস্টার্ন দর্শক এই মুভিকে নিয়ে এত মাতামাতি করছে। মজার ব্যাপার হচ্ছে যে সকল কারণে আমরা এই মুভি নিয়ে হাসাহাসি করি ঠিক সে কারনেই হলিউডের দর্শকে + ফিল্ম ক্রিটিকরা এটাকে এত পছন্দ করেছে। কথা আছে না এক দেশের গালি অন্য দেশের বুলি।
আগেও এর চাইতে ভালো মুভি ভারতে তৈরি হয়েছে

সেগুলো নিয়ে লাফায় নাই কারণ তখন হলিউডেও অনেক বিগ স্কেলের এন্টারটেইনিং মুভি এসেছে, কিন্তু এভেঞ্জার এন্ড গেম এর পরে মার্ভেলের মুভি গুলোর অবস্থা কি তা সকলেরই জানা, ডাই হার্ড মার্ভেল ফ্যানরাও এখন মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে, আর ডিসি ত ডিসি, তাই গত ৩ বছরে মোটামুটি বিনোদন মূলক মাস (Mass) মুভি বাজারে একটা ভ্যাকুয়াম তৈরি হয়েছে এবং এই যায়গাটাই RRR নিতে পেরেছে যার ফলাফল এখন আপনারা দেখতে পাচ্ছেন।

Leave a Comment

Total Views: 729

Scroll to Top