ফ্ল্যাশ এপিসোড ৬ License to Elongate রিভিউ

ফ্ল্যাশ License to Elongate এপিসোড রিভিউ – The Flash S06EP06 Review

ফ্ল্যাশ License to Elongate এপিসোড রিভিউ

গত ৮ অক্টোবর এ অ্যারোভার্সের নিয়মিত সিরিজ The Flash এর সিজন ৬ এর প্রথম এপিসোড প্রচারিত হয়েছে । সর্বশেষ গত ছয় নভেম্বর এ ফ্ল্যাশ এর পাচ নম্বর এপিসোড প্রচারিত হয় । এর পরে দীর্ঘ ১৫ দিন বিরতির পরে ফ্ল্যাশ এর নতুন এপিসোড প্রচারিত হল । মাঝের এই বিরতি সময়ে অ্যারোভার্সের বাৎসরিক ক্রসওভার ইভেন্ট এর শুটিং হয়েছে । এবারের ক্রসওভার এর নাম ক্রাইসিস অন ইনফিনিটি আর্থস ।

অ্যারোভার্সের ক্রসওভার নিয়ে বিস্তারিত জানতে আমাদের ক্রাইসিস অন ইনফিনিটি আর্থ এর অজানা বিষয় জেনে নিন । অনেকেই হয়ত ফ্ল্যাশ এর অরিজিন জানেন না । তাই আপনি যদি The Flash এর ফ্যান হয়ে থাকেন, তাহলে অবশ্যই আমাদের লেখা ফ্ল্যাশ এর অরিজিন পোস্ট পড়ে নিবেন আশা করছি ।

The Flash হল সেন্ট্রাল সিটিতে পুলিশ ডিপার্টমেন্ট এর ফরেনসিক বিভাগে চাকরিরত যুবক । ব্যারি অ্যালেন স্টার ল্যাবে সংঘটিত হওয়া এক দুর্ঘটনায় সে সুপারহিরো ক্ষমতা লাভ করে। এর পরে ল্যাবে থাকা ব্যাক্তিদের সহযোগীতায় সে অন্যায়ের বিরুদ্ধ্যে লড়াই চালিয়ে যায়। আর এই ভাবে শুরু হয় ব্যারি অ্যালেন এর The Flash যাত্রা ।

এবার পড়ে নিন দ্যা ফ্ল্যাশ সিজন ৬ এপিসোড 5 রিভিউ

এই এপিসোড এ ব্যারি এবং রাল্ফ কে দেখা যায় নিজেদের সুপারহিরোত্ব ছেড়ে নিজেদের আসল চেহারা বা নিজেদের নিজস্ব ভাব নিয়ে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে । কিন্তু নিজেদের সুপারহিরোত্ব ছাড়া তারা কি সফল হতে পারবে ? এটাই দেখার বিষয় ।

The Flash সিজন ৬ এপিসোড ৬ রিভিউ

∑‡ স্পইলার এলার্ট †⁺

★ ছয় নাম্বার এপিসোড এর সময়কাল ছিল ৪২ মিনিট। এই এপিসোডটির নাম ছিল License To Elongate । সত্যি কথা বলতে কি, এই এপিসোড এর নাম License To Elongate রেখে পুরো ফাটিয়ে দিয়েছে । কিভাবে ? আপনি এই এপিসোডটি দেখলেই বুঝতে পারবেন । এটি প্রচারিত হয়েছিল The CW নেটওয়ার্ক এ ।

ফ্ল্যাশ সিরিজ রিভিউ
(image Credit: The CW/DC/WB)

★ পুর্ববর্তি এপিসোড দ্যা ফ্ল্যাশ সিজন ৬ এপিসোড ৫ রিভিউ পড়ে নিন।

★ গত এপিসোড এ ন্যাশ ওয়েলস এর কথামত পুরো “টিম ফ্লাশ” হাজির হয় সেই টানেলে । যেখানে হ্যারিসন ন্যাশ ওয়েলস এবং জো ওয়েস্ট আটকা পরেছিল এবং যেখানে মনিটর লুকিয়ে ছিল । তখন হ্যারিসন বলে আমি শুধু রহস্য উন্মোচন করিনা, সেই সাথে কুসংস্কার ও দূর করি । মার নভু বা মনিটর সে শুধুই একটা ভন্ড । যে মাল্টিভার্সের প্রায় অনেকগুলি পৃথিবীজুড়ে নিজের ভয় সৃষ্টি করছে । আর এই পৃথিবীতে তোমাকে মারতে চাচ্ছে, তাইতো আমি ওকে ধরে ফেলব ।

★ এর পরেই ব্যারি সামনের পাথরের ভিতরে ঢুকতে গেলে ব্যারি আঘাত পায় । হ্যারিসন বলে এটা মার নভুর অন্য আরেকটা ট্রিক । আমাকে শুধু বের করতে হবে কি দিয়ে আঘাত করলে ইথারিয়াম ভাংগা যাবে । আমি হয়ত জানি কে এটা পারবে ।

★ এর পরে দেখা যায় চেস্টার কিং এর জ্ঞ্যান ফিরেছে । তখন স্টার ল্যাবে সে একা ছিল । স্টার ল্যাবের সকল ফ্যাচিলিটি দেখে চেস্টার আনন্দে পাগলামি শুরু করে দেয় । তখন সে অনলাইন এ নিজের নাম লিখে সার্চ দেয় । সে দেখে যে অনলাইন নিউজ পেপারগুলিতে তার মৃত্যু খবর প্রকাশিত হয়েছে । তখনি তার পিছনে কিলার ফ্রস্ট এসে দারায় । চেস্টার বলে এটা কি? কিলার উত্তর দেয়, টেকনিক্যালি তুমি মারা গেছ ।

★ এর পরে সিসিপিডি এর হেডকোয়ার্টার এ নিয়ে যাওয়া হয় । যেখানে ব্যারি আর জো একটি ব্যাজ নিয়ে আলোচনা করছিল । ব্যারি বলছিল আমি যখন ক্রাইসিস এর পরে চলে যাবো, তখন ইলোনগেট ম্যান এর দরকার পরবে এই শহরের । জো বলে, রাল্ফ এটা দেখলে চিল্লানি শুরু করে দিবে । এর পরেই রাল্ফ সেই রুমে চলে আসে । ব্যারি আর জো দুজনেই সেই ব্যাজ লুকিয়ে ফেলে । জো রাল্ফ কে একটি ফাইল দেয় যেখানে রাল্ফ এর ইনভেস্টিগেশন করতে থাকা একটি কেস এর তথ্য ছিল । রাল্ফ সেটি নিয়ে চলে যেতে থাকলে ব্যারি তার সাথে যায় রাল্ফ কে সাহায্য করতে ।

★ পরের দৃশ্যে দেখা যায় ব্যারি এবং রাল্ফ একটি বড় বিল্ডিং এর সামনে গাড়িতে বসে রয়েছে । তারা একজন ব্যাক্তি কে খুঁজছে । এর পরেই রাল্ফ বলে চলো তৈরি হয়ে নাও ভিতরে যাওয়ার জন্য । তখন ব্যারি নিজের ফ্ল্যাশ স্যুট পরে বের হয় আর রাল্ফ টাক্সিডো পড়ে বের হয় । পরে ব্যারি আর রাল্ফ দুজনেই টাক্সিডো পড়ে বের হয়ে সেই পাচতারা বিল্ডিং এর ভিতরে যায় ।

★ সেখানে ভিতরে ঢুকে তারা । সেখানে তারা ভিআইপি লঞ্জে ঢুকার পথ খুঁজতে থাকে । সেই মুহুর্তে একটি মেয়েকে দেখে রাল্ফ, সে তথ্য সংগ্রহ করতে যায় । সেই মেয়ের সাথে রাল্ফ আর ব্যারি কথা বলতে থাকে । কিন্তু তারা ব্যার্থ হয় । সেই মেয়ে তাদের কে ধরে ফেলে এবং সেই বিল্ডিং থেকে বের হয়ে যেতে বলে সে অন্য জায়গায় চলে যায় । ব্যারি চলে যেতে চাইলে রাল্ফ বলে এই যে আমাদের ভিআইপি লঞ্জে ঢুকার চাবি । এই বলে রাল্ফ একটি স্বর্ণ এর গোলক বের করে ।

  • ওরা ভিতরে ঢুকে গেলে সেই পার্টির হোস্ট খুঁজতে থাকে । কিন্তু সেখানে অনেক লোকজন থাকায় ওরা ব্যার্থ হয় । পরে ওরা পোকার গেম খেলতে গেলে পার্টির হোস্ট রিমেংটন মেইস্টার আসে এবং ব্যারি আর রাল্ফ এর সাথে পোকার খেলতে থাকে। দুজনের পরিচয় জানতে চাইলে ওরা নিজেদের আসল পরিচয় দেয়।
  • তখন রিমেংটন মেইস্টার বলে তোমরা কি কর? ব্যারি আর রাল্ফ দুজনেই ভিন্ন ভিন্ন উত্তর দেয় । রাল্ফ বলে আমরা একাধিক দেশে একাধিক কোম্পানি পরিচালনা করি । ব্যারি সু এর ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে সে জানেনা বলে সাফ জানিয়ে দেয় এবং চলে যায় । তখন সেখানে আল্যেগ্রা এর এর বোন কে দেখা যায়। যে কিনা অ্যালেগ্রা এর মত ক্ষমতা রয়েছে । তবে ব্যারি এবং রাল্ফ তা দেখতে পায়না ।
  • পরবর্তিতে ব্যারি আর রাল্ফ এর মাঝে ঝগড়া এবং কথা কাটাকাটি হয় । বিশেষ করে ব্যারি সেখান থেকে চলে যেতে চাইলে রাল্ফ না করে দেয় । বলে এখানে গণ্ডগোল আছে । এদের কে দেখতে পাচ্ছ এরা সবাই আন্ডারওয়ার্ল্ড এর বাঘা বাঘা সদস্য । যদি এরা সবাই একত্রিত হয় তার মানে কোন একটা গণ্ডগোল নিশ্বয় আছে । সেটা কি তা দেখে এখান থেকে যাবো । তখন ব্যারি বলে ঠিক আছে তাহলে আমি চেক করি এক মিনিট ও লাগবে না । তখন রাল্ফ বলে দরকার নেই ।
  • এর পরে চেস্টার আর সিসিল কে দেখা যায় যে কিনা চেস্টার এর উকিল হয়েছে । সিসিল চেস্টার কে তার সাধারণ জীবন ফিরিয়ে দিতে সাহায্য করে । পরে সিসিল বলে তুমি চাইলে আমি তোমার ডেট এ যাওয়া নিয়ে সাহায্য করতে পারি । চেস্টার রাজি না হলেও পরে রাজি হয় । সিসিল এর পরিকল্পনা মোতাবেক চেস্টার তার ক্রাশকে ডেট এ যাওয়ার কথা বলে । কিন্তু সে না করে দেয় ।
  • পরে সিসিল বুঝতে পারে যে নিজের ভাবনার সাথে চেস্টার এর ভাবনা মিক্স হওয়ার ফলে সে উল্টাপাল্টা চিন্তা করছে । যে কারনে চেস্টার এর ডেট রাজি হয় না । পরে চেস্টার বলে কোন সমস্যা নেই । আমি আজ আমাকে খুঁজে পেয়েছি । আশা করি ভবিষ্যৎ এ তুমি তুমাকে খুঁজে পাবে । এই বলে চেস্টার চলে যায় ।

★ এর পরে ন্যাশ ওয়েলস আইরিস এর অফিসে ইথারিয়াম এর পাথর ভাংগার জন্য আল্ট্রা ভায়োলেট রশ্মি খুঁজতে থাকে । তখন আইরিস এর অফিসের ইন্ট্রান আসে । বলে তুমি কি করছ । তখন ন্যাশ ওয়েলস বলে আমি এক জায়গায় খুদাই করছি। এর জন্য আমার আল্ট্রা ভায়োলেট রশ্মি দরকার আর আমার এই গানলেট বলছে এখানে এই রকম কিছু একটা আছে ।

★ পরে ইন্ট্রান মানে অ্যালেগ্রা কে দেখিয়ে বলে ও হো তাহলে তুমি ইউভি শক্তিময় মেটা হিউম্যান । তুমি আমাকে সাহায্য করবে এই খুদাই এর কাজে ? অ্যালেগ্রা বলে না, সাহায্য করব না । তখন হ্যারিসন বলে যদি তুমি আমাকে সাহায্য করো আমি, তোমাকে মাল্টিভার্স ডুপলেংগার ইত্যাদি সম্পর্কে বলতে পারি । তখন অ্যালেগ্রা রাজী হয় ।

★ যদিও ওই টানেলের ভিতরে যাওয়ার সময় সবকিছু বলে । এর পরে ভুলে হ্যারিসন, ফ্ল্যাশ মানে ব্যারি অ্যালেন এর গোপন পরিচয় বলে দেয় । তখন ন্যাশ বলে অনেক গল্প হয়েছে। এইবার ইউভি রে দিয়ে টানেল খুলে দাও। যেন বুঝতে পারি কোন পাথর সরাতে হবে । তখন অ্যালেগ্রা না করে। সে বলে তার ক্ষমতা দিয়ে কাউকে সে মারতে পারবে না । পরে হ্যারিসন তাকে বুঝায় । এর পরে অ্যালেগ্রা ইউভি রে ছেড়ে দেয় সেই টানেলে ।

★ এর পরেই ব্যারি আর রাল্ফ ওই বিল্ডিং চেক করতে থাকে । তখন রাল্ফ কম্পিউটার চেক করতে গেলে দেখে, একটি ওয়েপন যেটা দিয়ে পুরো সেন্ট্রাল সিটি ধ্বংস করা যাবে । তখন রাল্ফ বুঝতে পারে, কেন সকল সন্ত্রাসী এখানে উপস্থিত হয়েছে । সেই সময়েই ব্যারি কে আক্রমণ করে অজ্ঞান করে দেয় অ্যালেগ্রার কাজিন । অন্যদিকে রাল্ফ কে পিছন থেকে ইলেকট্রিক শক দিয়ে আক্রমণ করে অজ্ঞান করে দেয় রিমেংটন মেইস্টার ।

★ ওদের দুজনের জ্ঞ্যান ফিরলে দেখে ওরা দুজনেই মেটা কাফ পড়ে বাধা রয়েছে । যার ফলে ওরা নিজেদের ক্ষমতা ব্যাবহার করতে পারছে না । তখন রিমেংটন মেইস্টার বলে সেন্ট্রাল সিটির সুপারহিরো এখানে কি করছে ? তখন রাল্ফ আর ব্যারি কে বলে এখানে এসেই গেছ তাহলে তোমাদের শহর ধ্বংস হওয়া দেখে যাও । এই বলে ওদের দুজনের দিকে একটি লেজার ক্যানোন তাক করে রাখে । যেটা কিনা শহর ধ্বংস হওয়ার পরে ওদের দুজনকেও গুলি করবে । এর ফলে শহর ধ্বংসের পরে তোমাদের মৃত্য দেখবে ।

★ রিমেংটন মেইস্টার আর তার দল চলে গেলে । ব্যারি আর রাল্ফ একটি উপায়ে তাদের বন্দিদশা থেকে মুক্ত হয় । আর রিমেংটন মেইস্টার এর নিলামপ্রক্রিয়া এর দিকে চলে যায় । যেখানে শহর ধ্বংস এর ওয়েপন বিক্রি হচ্ছিল ।

★ অ্যালেগ্রা কে হ্যারিসন বাসায় নিয়ে যায় । সেখানে হ্যারিসন তাকে কফি অফার করে । সে কফি খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে । তখন হ্যারিসন চলে যায় । কিন্তু যাওয়ার সময় হ্যারিসন পিছনে তাকিয়ে অ্যালেগ্রার দিকে তাকিয়ে ইমোশনাল হয়ে যায় । [ এর ফলে আমার ধারনা হচ্ছে যে হ্যারিসন এর পরিচিত কেও একজন হয়ত অ্যালেগ্রার ডুপলেংগার । হয়ত মেয়ে ছিল, হয়ত মনিটর তার সাথে কিছু একট করেছে । যার কারনে হ্যারিসন এতো সিরিয়াস মনিটর কে ধরতে । সবটুকুই আমার ধারনা মাত্র । ] তাই ভবিষ্যৎ এ কি হবে সেটা আগামি এপিসোড গুলিতেই দেখা যাবে ।

♥ Read More: স্টার ওয়ার্স: ম্যান্ডোলরিয়ান চ্যাপ্টার ৩ ব্রেকডাওন রিভিউ পড়ুন ।

★ সেখানে ব্যারি, রাল্ফ, রিমেংটন মেইস্টার এবং অ্যালেগ্রার কাজিন আল্ট্রাভায়োলেট এর মধ্যে তুমুল লড়াই হয় । ∆ যেহেতু আমরা জানি সকল সিনেমা আর টিভি সিরিজে হিরোদের জয় আর ভিলেন এর পরাজয় নিশ্বিত তাই আর বর্ণনা দিলাম না 😉 ∆ । এর পরে ওরা ওই ওয়েপণটি ধ্বংস করে ফেলে দেয় । আর নিজেদের শহর কে রক্ষা করে ।

★ পরেরদিন সেন্ট্রাল সিটির পুলিশ হেডকোয়ার্টার এ নিয়ে যাওয়া হয় । যেখানে দ্যা ফ্ল্যাশ তার কর্ম এর ব্যাপারে প্রেস কনফারেন্স এ বলছিল যে তার পরে যে এই শহরে হাল ধরবে সে হচ্ছে ইলোনগেট ম্যান । ইলোনগেট ম্যান দয়া করা এখানে আসুন । তখন ইলোনগেট ম্যান সেখানে গেলে ফ্ল্যাশ তাকে শহরের রক্ষার জন্য ধন্যবাদ এবং একটি ব্যাজ দেয় । এর পরে ফ্ল্যাশ সেখান থেকে চলে যায় । পরে জো ওয়েস্ট বলে আজকে আমরা শুধু অতিমানবীয় ক্ষমতাসীন সুপারহিরোদের কেই নয়। সেই সাথে সাধারণ একজন ব্যাক্তিকেও দিবো । এই বলে ব্যারি অ্যালেন কে ডেকে আনে । সেখানে তাকে ফরেনসিক ডিপার্টমেন্ট এ ভুমিকা রাখার জন্য গার্ড অফ ওনার ব্যাজ প্রদান করে ।

★ এর পরে পোস্ট ক্রেডিট সিন এ দেখা যায় যে রাল্ফ আইরিস কে ডেকে এনেছে তার ব্যাজ দেখানোর জন্য । সেই সাথে কিছু ইনফরমেশন দেয় আইরিস কে আল্ট্রাভায়োলেট এর ব্যাপারে । আইরিস চলে গেলে রাল্ফ অন্যদিকে তাকায় ঠিক তখনি তার পিছনে একটা শব্দ শুনতে পায় । পিছনে তাকালে দেখে ডক্টর র‍্যামসি তাকে আক্রমণ করে বসে । ∅ এভাবেই শেষ হয় ফ্ল্যাশ এর সিজন ৬ এর এপিসোড ৬ । ∂ আগামী এপিসোড প্রচারিত হবে আগামী ২৭ শে নভেম্বর ২০১৯ এ ।

 

★ দ্যা ফ্ল্যাশ সিজন ৬ এপিসোড 7 রিভিউ পড়ে নিনThe Flash এর সিজন ৬ এর ট্রেইলার ব্রেকডাওন রিভিউ ∆ The Flash সিজন ৬ ট্রেইলার ব্রেকডাওন রিভিউ পড়ুন এই লিংক থেকে

Leave a Comment

Total Views: 548

Scroll to Top