টাইটান্স E.L._.O এপিসোড রিভিউ

টাইটান্স E.L._.O এপিসোড ১১ রিভিউ – Titans S02 Ep11 Review

টাইটান্স E.L._.O এপিসোড ১১ রিভিউ

টাইটান্স হল ব্যাটম্যান এর সাইড কিক ডিক গ্রেসন ওরফে “রবিন” এর লিডারশীপ এ তৈরি হওয়া একটি সুপারহিরো দল ।

কিন্তু কিছু কারনে পুরনো টাইটান্স টিম ভেংগে গেলে রবিন নতুন টিম তৈরি করে। নতুন সদস্যদের নিয়েই সান ফ্রান্সিসকো তে শুরু হয় নতুন টাইটান্স এর যাত্রা।

ডিসি এর টাইটান্স এপিসোড ১১ ব্রেকডাওন

🚫 ∑‡ স্পইলার এলার্ট †⁺ 🚫

☞ Must Read: ম্যান্ডোলরিয়ান The Sin পর্ব ৩ রিভিউ দেখে নিন ।

Titans Season 2 Episode 11 Review

★ টাইটান্স এর সিজন ২ এর এপিসোড নাম্বার ১১ এর নাম ছিল E.L._.O । এর ব্যাপ্তিকাল ছিল ৪৭ মিনিট । প্রচারিত হয়েছিল ১৫ ই নভেম্বর এ, ডিসি কমিক্সের নিজস্ব অনলাইন স্ট্রিমিং সার্ভিসে যার নাম “DC Universe” ।

★ এপিসোড শুরু হয় আগের এপিসোড এর রিক্যাপ দৃশ্য দেখিয়ে । বিশেষ করে এপিসোড ১০ এর দৃশ্য দেখিয়ে । এর পরে ডিসির ওপেনিং সিন প্লে হয় । তার পরে শুরু হয় এই এপিসোড এর মুল পর্ব ।

Read Also: ফ্ল্যাশ License To Elongate এপিসোড ৬ রিভিউ

★ এপিসোড শুরু হয় ক্যাডমাস ল্যাবে । যেখানে গারর কে আটকে রেখে তার ব্রেনের উপর রিসার্চ করছে ল্যাবের সায়েন্টিস্টরা । আর সে তাকিয়ে থেকে কোন কারন ছাড়াই পুরনো কথা বলে যাচ্ছে । বিশেষ করে টাইটান্স সিজন ২ এপিসোড ৫ এ হওয়া র‍্যাচেল আর তার নিজের মধ্যে ঝগড়াবিবাদ এর কথা ।

★ এরপরে অন্য দৃশ্যে একটি জেল খানা দেখা যায় । যেখানে ডিক গ্রেসন কে আটকে রাখা হয়েছে, সেই সেল এ নিয়ে যাওয়া হয় । সেখানে ডিক ঘুমানোর চেষ্টা করছিল । কিন্তু সে ঘুমাতে পারেনা জ্বর আসার কারনে । যার ফলে সে ঘুমের ঘোরে নিজেই নিজের সাথে কথা বলছিল ।

★ তখনি তার অল্টার ইগো চলে আসে, ব্রুস ওয়েন এর রুপ নিয়ে । সেখানে তাদের দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয় । যদিও তারা দুজনেই আসলে একজন কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই ব্রুসের চেহারায় ডিক গ্রেসন এর অল্টার ইগো অনেক সাহায্য করে । যা আপনি এই এপিসোডটি দেখলেই বুঝতে পারবেন ।

Read Also: টাইটান্স সিজন ২ এপিসোড ৬ রিভিউ

★ এর পরে টাইটান্স থিম সং প্লে হওয়ার পরে দেখা যায় র‍্যাচেল একটি গ্রেভ ইয়ার্ড এ দারিয়ে রয়েছে । সেখানে অনেক লোকজন দাঁড়িয়ে ছিল । পরে সে একটি কবরের পাশে যায়, সেখানে দেখতে পায় কবরে ডিক গ্রেসন এর নাম লিখা । হঠাৎ করেই তার পিছনে কেউ হাত দেয় । পিছনে তাকালেই দেখে যে, ডিক দাঁড়িয়ে রয়েছে । ডিক বলে don’t give up । র‍্যাচেল তখন তার হাত ধরে আর দেখতে পায় একটি নাম “এলকো ডাইনার” । র‍্যাচেল বুঝতে পারে না এটা কি । তখনি ডিক এর পিঠে ছুড়ি ঢুকিয়ে দেয় ডেথস্ট্রোক আর ডিক মারা যায় । তখন র‍্যাচেল চিৎকার দেয় । এতে তার ঘুম ভেংগে যায় ।

★ পরের দৃশ্যে টাইটান্স টাওয়ারে নিয়ে যাওয়া হয়। যেখানে ডোনা ইনভেস্টিগেশন করছিল, গারর আর কনর এর কি হয়েছে । তখনি র‍্যাচেল এর ফোন আসে । যদিও র‍্যাচেল এর কথা বুঝতে পারে না । শুধু “এলকো ডাইনার” শব্দটি শুনতে পারে । এর পরেই কলটি কেটে যায় ।

★ এর পরে ডওন কে দেখা যায় গাড়িতে করে কোথাও যাচ্ছে । পথিমধ্যে গাড়িতে থাকা রেডিও তে “এলকো ডাইনার” শব্দটি শুনে তাকে সেখানে যেতে বলে । অন্যদিকে র‍্যাচেল আর ড্যানি কথা বলছিল । তখন এক মেয়ে নাম এরিয়েল এসে বলে যে, তোমার বাবা মারা গেছে । কিছু একটা তাকে আক্রমণ করেছিল । র‍্যাচেল বলে এটা আমি করিনি ড্যানি । ড্যানি বলে আমি জানি, আমিও চেয়েছিলাম যেন সে মারা যায় অন্তত হাজার বার । অবশেষে তাই হলো । এর পরে র‍্যাচেল কে দেখা যায়, একটি বাস কাউন্টারে । সেখানে সে “এলকো” এর টিকিট কিনে “এলকো” যাওয়ার জন্য রওনা দিচ্ছিল ।

∆ Read More: ফ্ল্যাশ সিজন ৬ এপিসোড ৫ রিভিউ

★ কোরি কে দেখা যায় একটি লোককে নিজের বাসায় এনে, তার সাথে ইয়ে (🔞) শুরু করে দিয়েছে । কিছু পরে সেই লোক চলে যাওয়ার পরে দেখা যায় তার টিভিতে, সেই “এলকো ডাইনার” এর বিজ্ঞাপন দেখানো হচ্ছে এবং তাকে আসতে বলা হচ্ছে ।

★ এর পরে পুনরায় সেই সেল এ নিয়ে যাওয়া হয়, যেখানে ডিক কে বন্দি রাখা হয়েছে । তার অল্টার ইগো ব্রুসের চেহারা নিয়ে কথা বলছিল। বিশেষ করে জেরিকো এর ব্যাপার নিয়ে । জেরিকো একটি বিশেষ ক্ষমতা সম্পুর্ন বাচ্চা । ওর সবসময় কারো থেকে ক্ষেয়াল রাখা দরকার ছিল । ডিক তখন বলে আমি ওর প্রতি যথেষ্ট ক্ষেয়াল রেখেছি । ব্রুস তখন বলে হ্যা, সেই জন্য ও মারা গেছে । ব্রুস বলে অনেক হয়েছে, এবার এখান থেকে বেরোও । ডিক বলে না, আমি এখানেই থাকব । আমার জন্য ওই বাচ্চা ছেলেটি মারা গেছে । আমি এখানেই থাকব । তখন ব্রুস বলে, বাচ্চাটির বাবা ওকে মেরেছে তুমি মারনি। নিজেকে নিজে দোষারোপ করা বন্ধ কর ।

★ এর পরে রোজ আর জেসন কে দেখা যায় । ওরা গোথাম শহরের বাইরে কোথাও শুয়েছিল। সেখানে ওরা নিজেদের ব্যাপারে কথা বলে । জেসন বলে যদি আমি আমার ব্যাপারে বলি তাহলে, তুমি তোমার ব্যাপারে বলবে? রোজ বলে হ্যা। এই বলে জেসন রোজ কে নিয়ে তার বাড়িতে যায় । যেখানে জেসন নিজের ব্যাপারে বলে । অত:পর জেসন রোজ কে বলে, তুমি কি আমাকে সত্যিই ভালোবাসো? তাহলে চলো সব কিছু ছেড়ে অন্য কোথাও চলে যাই । যেখানে আমাদের কাউকে ভয় পেয়ে চলতে হবে না । কেউ আমাদের চিনবে না । তখন রোজ রাজি হয় এবং চলে যায় ।

★ এর পরে দেখা যায়, কোরি এলকো ডাইনারে এসে সেখানে থাকা মহিলার সাথে ঝগড়া করছে । সেই মহিলা চলে গেলে কোরি এর পিছন থেকে র‍্যাচেল আসে । র‍্যাচেল বলে বলে তুমি এখানে কি করছো? কোরি বলে জানিনা । এর পরেই সেখানে ডওন আসে, তার সাথে সাথেই ডোনাও সেখানে চলে আসে । ওরা সবাই অবাক হয়ে যায় । কেউ একজন ওদেরকে এখানে নিয়ে এসেছে কিন্তু কে? । এর পরেই পিছনের দরজা খুলে যায়, সেখানে এক ব্যাক্তি এসে দারায় । ডোনা বলে ব্রুস !!! । ব্রুস ওয়েন বলে, ভালো হয়েছে তোমরা সবাই এসেছো ।

Read Also: ক্রাইসিস অন ইনফিনিটি আর্থ ট্রেইলার ব্রেকডাওন রিভিউ

★ ব্রুস বলে, এটা খারাপ সংবাদ । গারর আর কনর গায়েব । ডোনা বলে, বিল্ডিং এর কাচ ভাংগা কয়েক জায়গায় রক্ত ছিটিয়ে রয়েছে। সিকিউরিটি ব্যাবস্থা অচল। গারর এভাবে কখনোই চলে যাবে না , কিছু একটা হয়েছে। আমি এখানে এসেছিলাম, র‍্যাচেল যখন ফোন করেছিল ভেবেছিলাম ও হয়ত ওদের খবর জানে । র‍্যাচেল বলে ওদের সাথে আমার কথা হয়নি । পরে ব্রুস বলে, আমি জানি তোমাদের মাঝে কি হয়েছে এর জন্য আমি দুঃখিত । হ্যা এটা সত্য মিথ্যা একটি পরিবার কে ভেংগে ফেলতে পারে ।

★ তুমরা এভাবে বসবাস করতে পারো না এটা আমি বুঝেছি । কিন্তু পরিবার ভেংগে দেওয়া সেটা তোমাদের ইচ্ছা ছিল । কিন্তু বিপদ থেকে দূরে যাওয়া তোমাদের নিরাপদ রাখবে না । তোমরা যদি একে অপরের ক্ষেয়াল না রাখ তাহলে কে রাখবে? আমি তোমাদের বলছি, তোমাদের নিজেদের মধ্যে যে ভুল বুঝাবুঝি মনোমালিন্য আছে সেটা দূর কর । যদি তোমরা একত্র হও তাহলে সব সমস্যার সম্মুখীন হতে পারবে, একা থাকলে কেউ বেচে থাকতে পারবে না । যদি তোমরা একে অপরকে নিরাপদে না রাখ, তাহলে কে রাখবে? এই বলে ব্রুস তার পাশে থাকা একটি ডোনাট নিয়ে চলে যায় । তখন ডোনা বলে, ও কি চলে গেল? ডওন বলে হ্যা 😉

★ এর পরেই তাদের পাশে থাকা টিভিতে খবর চালু হয়। যেখানে গত এপিসোড এ জেল থেকে দুই অপরাধী কে পালানোর সময় ডিক এর সহযোগীতা করার কথা বলা হয় । এর পরে সবাই ওই ডাইনার থেকে বের হয়ে যায় । ডোনা চলে যেতে থাকলে র‍্যাচেল তাদের কে আটকায় । তখন ডোনা বলে আমি ডিক গ্রেসন কে জানি, ও নিজেই নিজের এই হাল করেছে । র‍্যাচেল বলে আমি আবার সপ্ন দেখা শুরু করেছি । আমি ডিক এর funeral এ ছিলাম, ডেথস্ট্রোক ওকে মেরে ফেলেছে । তখন ডোনা বলে আমি দুঃখিত র‍্যাচেল । আমি পারব না বলে চলে যায় । ডওন তখন র‍্যাচেল কে বলে দেখ ডিক নিজের ক্ষেয়াল রাখতে পারবে । কিন্তু আমাদের কে গারর আর কনর কে খুঁজে বের করতে হবে । যখন এই ঝামেলা শেষ হয় তখন আমাদের খুঁজে বের করো, ঠিক আছে আছে? আমি ডোনা এর সাথে যাচ্ছি গারর কে খুঁজতে এই বলে ওরা চলে যায় । তখন র‍্যাচেল কোরি কে বলে তুমিও চলে যাবে। কোরি বলে না ।

★ এর পরে সেই সেল এ নিয়ে যাওয়া হয় । যেখানে ব্রুস ওয়েন আর ডিক কথা বলে । ব্রুস ডিক কে বলে, আর রবিন হয়ো না, রবিনের চেয়ে আরো শক্তিশালী, আর ক্ষিপ্র আরো মেধাবী হও । যেমনটা: বার্ডস ওফ প্রে । তখন সে নিজেই একা একা ট্রেইনিং করে । আর তার চোখে বার বার ডেথস্ট্রোক এর বাড়িতে গিয়ে ডেথস্ট্রোক আর তার স্ত্রির সাথে কথা বলার দৃশ্য মনে করে । তখন ডিক বুঝতে পারে যে ডেথস্ট্রোক এর মধ্যে কিছুটা গণ্ডগোল রয়েছে ।

→ Read More: ব্যাটওম্যান এপিসোড ৩ রিভিউ

★ এর পরে রোজ কে দেখানো হয় । যেখানে রোজ এর হাতে জেসন এর মোবাইল । জেসনের মোবাইলে ডোনা এর মেসেজ আসলে, রোজ সেটা ডিলেট করে । অন্যদিকে রোজ ডেথস্ট্রোক কে ফোন দেয় এবং বলে তুমি টাইটান্সদের সাথে যে খেলা খেলছ সেটা থেকে আমি বের হলাম। আমি চলে যাচ্ছি অনেক দূরে বলে রোজ ফোন কেটে দেয় আর মোবাইল পানিতে ফেলে দেয় । অন্যদিকে কোরি আর র‍্যাচেল সেই জেলখানা ভেংগে ভিতরে ঢুকে ডিক কে বের করে আনার জন্য । কিন্তু সেখানে ডিক কে খুঁজে পায় না । ডিক আগেই পালিয়েছে, সেখানকার দেওয়ালে লিখা ছিল: “ Jericho is alive ” । এর মাধ্যমেই টাইটান্স এপিসোড ১১ শেষ হয় । বাকিটুকুতো জানা যাবে পরবর্তী ১২ নাম্বার এপিসোড এ ।

টাইটান্স সিজন ২ ট্রেইলার রিভিউ

∆ ডিসি টাইটান্স সিজন ২ ট্রেইলার ব্রেকডাওন রিভিউ পড়ুন এই লিংক থেকে ।

Leave a Comment

Total Views: 488

Scroll to Top