ব্লাক এডাম বাংলা অরিজিন

ব্লাক এডাম । খুব তাড়াতাড়ি আসতে চলেছে ডোয়েইন জনসন ওরফে ‘রক’ অভিনিত ডিসির এন্টিহিরো ব্লাক এডামের লাইভ অ্যাকশন সিনেমা।

ব্লাক এডাম বাংলা অরিজিন

আগামী ২০২২ এর জুনে আসতে চলেছে এই সিনেমাটি। ব্লাক এডাম মুভি আসার আগে চলুন জেনে নেই ব্লাক এডামের অরিজিন।

ব্ল্যাক অ্যাডাম অরিজিন বাংলায়

তাহলে Black Adam কে ? ব্ল্যাক এডাম হচ্ছে আদি wizard Champion

ব্ল্যাক অ্যাডাম চরিত্রটি বাইদার এবং সিসি বেক এর তৈরিকৃত চরিত্র । এটি ক্যাপ্টেন মার্ভেল (স্যাজাম) এর একজন ভিলেন চরিত্র। সর্বপ্রথম একটি এক-কালীন প্রচ্ছদ হিসেবে হাজির হয় ফসেট কমিক্সের ‘দ্যা মার্ভেল ফ্যামিলি’ কমিক বুকে । এটির প্রকাশ কাল ছিল ডিসেম্বর 1945। তবে, 1970 এর দশকে ব্ল্যাক অ্যাডাম, ডিসি কমিক্সের পুনরাবৃত্ত চরিত্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে । আর তাকে তখন প্রথম দেখা যায় ক্যাপ্টেন মার্ভেল / মার্ভেল ফ্যামিলি স্টোরিজ এর স্যাজাম শিরোনামে প্রকাশের সময় থেকে।

[ মার্ভেল কমিক্সের ক্যাপ্টেন মার্ভেল এর সাথে গুলিয়ে ফেলবেন না আবার । এই দুটি সম্পুর্ন আলাদা চরিত্র । আপনাদের সাড়া পেলে ক্যাপ্টেন মার্ভেল ওরফে শ্যাযাম সম্পর্কেও লিখে ফেলব ]

ব্ল্যাক এডামের বাংলা ওরিজিন

ব্ল্যাক অ্যাডামের ফসেট বা প্রাথমিক সংস্করণটি উপস্থিত হয়, ‘ক্যাপ্টেন মার্ভেল কমিক’সের প্রাথমিক প্রকাশের সময়। মার্ভেল ফ্যামিলি #1 এ ব্ল্যাক অ্যাডাম ছিল প্রাচীন মিশরীয় মানব । যার নাম ছিল ‘টিথ অ্যাডাম’ । সে তার মোরাল পিউরিটির কারনে উইজার্ড স্যাজামের উত্তরসূরী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিল। তার এই গল্পটি ডিসির স্যাজামে , পুনরাগমন হয়েছিল #8 (1973), যা ছিল ব্রোঞ্জ যুগে তার প্রথম উপস্থিতি।

BatMan এর কাজিন ব্যাটওম্যান এর বাংলা অরিজিন পড়ে নিন ।

বিলি ব্যাটসনের মতই যখন টিথ অ্যাডাম ম্যাজিক শব্দ “স্যাজাম” বলত, তখন সে মাইটি অ্যাডামে রূপান্তরিত হত । এটি মূলত উচ্চ ক্ষমতাশীল শক্তি সম্পন্ন শক্তি। টিথ অ্যাডামের ন্যায়পরায়ণতা ও শালীনতা উইজার্ড শ্যাযাম কে মুগ্ধ করেছিল। তাই সে খুশি হয়ে টিথ অ্যাডাম কে গ্রিক-রোমান মিথিকাল ক্ষমতা (মতান্তরে মিশরীয়) প্রদান করে।

কিন্তু মহা শক্তিমান অ্যাডাম অচিরেই তার এর মহা ক্ষমতাগুলির অপব্যবহার করতে থাকে। সে সিদ্ধান্ত নেয় নিজের এই অসীম ক্ষমতা ব্যাবহার করে ফারাও (তৎকালিন মিশরীয় রাজা) কে খুন করে তার সিংহাসন দখল করে পুরো পৃথিবী শাসন করবে।

কিন্তু তার এই কার্যকর্মে উইজার্ড স্যাজাম রেগে যায় ও ক্ষুদ্ধ হয়ে টিথ অ্যাডামকে অভিশাপ দেয় । সেইসাথে তাকে ব্ল্যাক অ্যাডামে রূপান্তরিত করে এবং অনেক দূরবর্তী ইউনিভার্সে পাঠিয়ে দেয়। যার ফলে ব্লাক অ্যাডাম ও টিথ অ্যাডামের বয়স থেমে যায় ও ইভিল শক্তি বাড়তে থাকে ।

স্যাজামের সাথে ব্লাক অ্যাডামের লড়াই

পাঁচ হাজার বছর ধরে বন্দি থাকার পরে এত দূরের পথ পাড়ি দিয়ে অ্যাডাম পৃথিবীতে ফেরৎ আসে নিজের প্রতিশোধ নিতে। কিন্তু বার্ধক্য-জনিত কারনে উইজার্ড স্যাজাম তখন তার পদে নতুন তিনজনকে নিয়োগ দেয়। এরা হল: বিল্লি ব্যাটসন (ক্যাপ্টেন মার্ভেল) ওরফে স্যাজাম, বিল্লির টুইন মেরি ব্যাটসন (মেরি মার্ভেল) এবং বিল্লির বেস্টফ্রেন্ড ফ্রেডি (ক্যাপ্টেন মার্ভেল জুনিয়র)।

ব্লাক আদাম ওরিজিন

অ্যাডামের সাথে স্যাজাম ও তার বন্ধুদের সাথে লড়াই হয় । কিন্তু বিলি ব্যাটসন লড়াইয়ে পেরে উঠে না । যার ফলে ব্লাক অ্যাডাম তাদের কে বেঁধে রাখে । উইজার্ড স্যাজামের থেকে পাওয়ার ফেরৎ নিতে । সেই সাথে ক্যাপ্টেন মার্ভেলকে খুন করে নিজে মার্ভেল বা স্যাজাম হবে সে লক্ষ্যে।

কিন্তু সে সময় ডুডলি (আংকেল মার্ভেল, মার্ভেল ফ্যামিলি মেম্বারদের একজন) এসে তিনজনকে বাঁচায় । আংকেল মার্ভেল মানে ডুডলির কোনো সুপার পাওয়ার ছিলনা । কিন্তু সে ম্যাজিকাল ট্রিকস জানতো।

পরবর্তীতে ব্লাক অ্যাডামের সাথে তাদের তুমুল লড়াই হয়। আংকেল মার্ভেল বুদ্ধি করে অ্যাডামের “টিথ অ্যাডাম” বলার পর পরই ম্যাজিক শব্দ “স্যাজাম” রিপিট করে। এর ফলে অ্যাডাম তার আসল বয়সে ফেরত চলে আসে এবং ক্যাপ্টেন মার্ভেল তাকে পরাজিত করে । ব্লাক অ্যাডাম কংকাল রুপে মারা যায়।

ব্লাক এডাম বাংলা অরিজিন
ব্লাক এডাম বাংলা অরিজিন
(Image Credit: DC Comics)

Black Adam Origin Bangla

ডিসি প্রি ক্রাইসিসে তাকে পুনর্জীবিত করে তোলে ডা. সিভানা [এই ডক্টর সিভানাই হলো ২০১৯ সালে মুক্তি পাওয়া স্যাজাম সিনেমার ভিলেন ] । স্যাজাম #28 অনুসারে, সে ছয় মিশরীয় দেবতা: সু (মনোবল), হারসেফ (শক্তি), আমন (ক্ষমতা) Aamon , জেহুটি (জ্ঞান), এনপু (দ্রুততা), মেনথু (সাহস) এদের থেকে শক্তি লাভ করে।

গ্রাফিক নোভেল ‘দ্যা পাওয়ার অফ স্যাজাম‘ এ তাকে পুনরায় পরিচয় করানো হয়। সেখানে তৎকালিক মিশরীয় সম্রাট দ্বিতীয় রামেসেসের ঘরে ১২৮৯ খ্রিস্টাব্দে তার জন্ম হয়। সেসময় উইজার্ড স্যাজাম মিশরের ফেরাউন রাজ্যের তৃতীয় প্রধান পুরোহিত ছিল। উইজার্ড সে সময় তার ক্ষমতা ব্যবহার করতে পারবে এমন উত্তরাধিকার বা চ্যাম্পিয়ন সন্ধান করছিল।

এই একই ক্ষমতা পরে ক্যাপ্টেন মার্ভেল কে (মর্ডান স্যাজাম বিল্লি ব্যাটসন) দেওয়া হয়। উইজার্ড স্যাজাম টিথের ন্যায়পরায়ণতায় মুগ্ধ হয়ে সে টিথকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে নির্বাচিত করে ও তাকে সুপারহিরো সর্বশক্তিমান অ্যাডামে পরিণত করে।

কিন্তু উইজার্ড স্যাজামের মেয়ে ব্লেজের ছলনায় টিথ দিনে দিনে খারাপ হতে থাকে এবং একসময় ঠিক করে সে নিজে মিশর শাসন করবে । মিশর শাসন করার লক্ষে টিথ ও ব্লেজ দুজনে মিলে মিশরের সম্রাটকে হত্যা করে। পরে উইজার্ড স্যাজাম তাদের স্কারাব নামক নেকলেসে বন্দী করে ও সমাধি দিয়ে দেয় । এই সমাধির নাম দেয় কেহেম-অ্যাডাম।

পরবর্তীকালে বিংশ শতাব্দীতে থিও অ্যাডাম নামে ডা. সিভানার একজন এসিসটেন্ট সেই সমাধি খনন করে । যা ছিল মি ব্যাটসন ও তার স্ত্রী মারলিনের আবিস্কার। পরে থিও অ্যাডাম তাদের হত্যা করে সমাধিতে পাওয়া আর্টিফেক্টস পাবার লোভে।

কিন্তু সে ফিরে এসে জানতে পারে যে ব্যাটসন দম্পতির সন্তান বিল্লি ব্যাটসন স্যাজামে পরিণত হয়েছে । শুধু তাই নয় সে নিজেই আসলে সেই কেহেম-অ্যাডামের পুনরুজ্জীবিত রূপ। পরে সে “স্যাজাম” নামটি উচ্চারনের মাধ্যমে ব্ল্যাক অ্যাডামে পরিণত হয়।

Read Also: ব্লাক এডাম মুভি রিভিউ

অন্যদিকে ডিসি নিউ-52 কমিক ভার্সন অনুযায়ী অ্যাডাম ছিল সেভেন সিনস নামে সাতজন বিপুল শক্তিধারী ব্যাক্তিত্বের একজন দাস। সে সময় খানদাখে বসবাস করত আমান নামক এক বালক । তারই আঙ্কেল হচ্ছে অ্যাডাম। অ্যাডাম তাকে তার দাস জীবন থেকে মুক্তি করতে সাহায্য করেছিল।

আমানকে উইজার্ড স্যাজাম তার চ্যাম্পিয়ন হিসেবে পছন্দ করে । এক লড়াইয়ে উইজার্ড স্যাজাম অ্যাডামের সাথে তার পাওয়ার শেয়ার করে। আর তাতেই অ্যাডাম ক্ষমতার লোভে এসে স্যাজামের শক্তি গ্রহণ করে আর আমান মারা যায়।

ডিসি রিবার্থে তাকে কাউন্সিল অফ ইমমোরটাল গ্রুপের সদস্যরূপে ভ্যান্ডেল স্যাভেজ, হওয়াক গার্লদের সাথে দেখা যায়।

ব্লাক অ্যাডামের অন্যান্য অরিজিন

Akh-Ton নামক এক শয়তান পূজারী orb of RA দিয়ে ব্লাক অ্যাডামের সম্রাজ্য kahdaq ধ্বংস করে ফেলে এবং তার পরিবারের সবাইকে হত্যা করে। এই ঘটনার পরে ব্লাক অ্যাডাম চরম বর্বর, পাষান হয়ে যায়। নিরীহদেরকে বাচাতে তার চরম নিষ্ঠুর নির্দয় নীতি তাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে এবং তার wizard শাস্তি স্বরূপ তাকে দ্বিতীয় ramesses এর সমাধির ভেতর চিরতরে বন্দি করে ফেলে। একসময় সে এই বন্দি অবস্থা থেকে মুক্ত হয়ে যায় এবং kahdaq এ গিয়ে ওই শহরের গিয়ে এক অত্যাচারী শাসককে পরাস্ত করে । এতে সাধারণ নিরীহ জনগনের কাছে দেবতুল্য হয়ে ওঠে ব্লাক অ্যাডাম ।

ব্ল্যাক এডামের শক্তির উৎস হচ্ছে প্রাচীন ৬ মিশরীয় দেবতা থেকে। billy batson যেমন Shazam বললে shazam হয়ে ওঠে তেমনি এডামও shazam উচ্চারণ করলে সেও বিলি ব্যাটসনের মত অস্বাভাবিক ক্ষমতা পেয়ে যায়। billy batson এর shazam এবং ব্ল্যাক এডামের shazam এর মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে একজন গ্রীক দেবতাদের এবং অন্যজন মিশরীয় দেবতাদের ক্ষমতা পায়।

Black Adam Powers And Strengths

ব্ল্যাক অ্যাডাম এর বিভিন্ন রকম ক্ষমতা আছে। যেমন, ‘ইজিপ্টিয়ান মিথোলজি সম্পন্ন জ্ঞান, ইজিপ্টিয়ান ম্যাজিক, বৈদ্যুতিক বজ্রশক্তি, জাদুকরী আলোক রশ্মি, দ্রুতগতিতে উড়া ইত্যাদি ।’ এছাড়াও পূর্বে সে ৬ টি ইজিপ্টিয়ান গডদের শক্তি হাসিল করে নিয়েছিল এবং রক অফ ইটার্নিটি অর্জন করে। নিচে ব্ল্যাক এডাম যে ক্ষমতাগুলো পায় তার বিস্তারিত বর্ণনা দেওয়া হলো:

Stamina of ‘SHU’ _-_ shu হচ্ছে আদি মিশরীয় দেবতা। shu এর ক্ষমতা পাওয়ার মাধ্যমে তার কোন ধরনের খাবার,পানি,অক্সিজেন বা ঘুমের প্রয়োজন হয় না। shu কে বলা হয় জেগে ওঠার দেবতা । তার এই ক্ষমতার কারনে সম্মুখ যুদ্ধে ব্ল্যাক এডাম হেরে গেলেও , নতুন উদ্দামে বার বার জেগে উঠবে লড়াইয়ের জন্য ।

Speed of ‘Heru’ _-_ ব্ল্যাক এডাম মহাজাগতিক শেষ প্রান্ত থেকে পৃথিবীর দুরত্ব প্রায় ৫০০০ বছরে অতিক্রম করে। (ডিসি ইউনিভার্সে মহাজাগতিক প্রশস্থতা ২০০ ট্রিলিয়ন আলোকবর্ষ চওড়া) । এ থেকে বুঝাই যায় তার গতি আলোর চেয়েও হাজার হাজার গুন বেশী। বলা চলে অনেকটা দ্যা ফ্লাশের মত দ্রুত গতির ।

*Strength of “Amon” — আমন এর শক্তির কারনে ব্লাক এডাম খুব সহজেই সমুদ্র থেকে ১ লাখ টনের বড় একটা রনতরী নিউ ইয়র্কের দিকে খুব সহজেই ছুড়ে মারে।

*Wisdom of “Zehuti” — হচ্ছে জ্ঞান ও জাদুর দেবতা। এর মাধ্যমে সে অত্যাধিক জ্ঞানী হয়ে ওঠে । এমনকি ব্ল্যাক এডাম একটা কমিক্সে শাজামের চিন্তাও পড়ে ফেলে।

লেজেন্ডের মতে ‘যে book of thoth / zehuti সম্পূর্ণ আয়ত্ত করবে সে পৃথিবীর সবচেয়ে পাওয়ারফুল জাদুকর হয়ে উঠবে’ এবং ব্ল্যাক এডাম এটারও মালিক।

*Power of “aton” — এর দ্বারা সে জাদুকরী বজ্রপাতের উৎস হয়ে ওঠে। অনেকটা গড অফ থান্ডার থরের মত ।

*Courage of “mehen” — এর দ্বারা সে চরম সাহসী ও ক্ষিপ্র হয়ে ওঠে। লড়াইয়ে সে অত্যাধিক সাহসী ও মনোবলি হয়ে উঠে ।

Black Adam Origin Bangla – DC Comics

ব্লাক এডাম অরিজিন লিখতে সার্বিক ভাবে সহযোগিতা করেছেন ‘সামিউল রাহাত’ ভাইয়া।

Leave a Comment

Total Views: 617

Scroll to Top